চট্টগ্রাম, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪ , ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বেইলি রোডে আগুনের সূত্রপাত কীভাবে, জানালেন র‌্যাবের ডিজি

প্রকাশ: ১ মার্চ, ২০২৪ ২:৩২ : অপরাহ্ণ

র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) এম খুরশীদ আলম জানিয়েছেন রাজধানী ঢাকার বেইলি রোডের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রাপাত ছিল ভবনটির নিচে থাকা একটি দোকান। যদিও আগুন লাগার পর শোনা যাচ্ছিল কোজি কটেজ ভবনের দোতলায় থাকা ‘কাচ্চি ভাই’ রেস্টুরেন্ট থেকেই আগুন ছড়িয়েছে।

শুক্রবার (১ মার্চ) দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে দগ্ধদের দেখতে যাওয়ার পর র‌্যাবের মহাপরিচালক এ তথ্য দেন। তিনি বলেন, নিচের একটি ছোট দোকানে প্রথমে আগুন লেগেছিল। সেখানে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র দিয়ে তারা প্রাথমিকভাবে আগুন নিয়ন্ত্রণেও এনেছিলেন। পরে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয়ে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

অধিকাংশ মানুষই ধোঁয়ার কারণে শ্বাসরোধে মারা গেছেন জানিয়ে র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, ভবনটিতে একটি মাত্র সিঁড়ি আর দুইটি লিফট ছিল। ভবনের নিচ তলার প্রবেশমুখে আগুন লাগার পর কেউ নামতে পারেনি। খুরশীদ আলম বলেন, কারা সিঁড়িতে সিলিন্ডার রেখেছে তা বের করা হবে। আমরা তথ্য সংগ্রহ করছি। এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে, তারাও রিপোর্ট দেবে।

এদিকে বেইলি রোড শাখার কাচ্চি ভাই’র ম্যানেজার বলেন, রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে আমি দ্বিতীয় তলা থেকে গ্লাসের ফাঁক দিয়ে নিচের দিকে তাকিয়ে দেখি ধোঁয়া বের হচ্ছে। তখন আমি আগুনের ভেতর দিয়ে নিচে বের হইছি। তখন সবাইকে সর্তক করে বলি বিল্ডিংয়ে আগুন লাগছে। সবাই নিচে নেমে আসেন। তারপর আমার স্টাফদের বলছি এক্সটিংগুইশার নিচে ফালাও। আমি নিজে এক্সটিংগুইশার দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেছি। তবে যে আগুন লেগেছে তা এক্সটিংগুইশার দিয়ে নেভানো সম্ভব হয় নাই।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে আয়োজিত এক বিফ্রিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন জানিয়েছেন, রাজধানীর বেইলি রোডের বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুনের ঘটনায় এ পর্যন্ত ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া, এ ঘটনায় দগ্ধ চিকিৎসাধীন ব্যক্তিরাও শঙ্কামুক্ত নন।

Print Friendly and PDF