চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ , ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ভোটের দিন সকালে কেন্দ্রে পাঠানো হবে ব্যালট প্যাপার

প্রকাশ: ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩ ২:১৬ : অপরাহ্ণ

 

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ভোটের দিন সকালে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নির্বাচন কমিশনের। এ ছাড়া হাওড়, পার্বত্য ও যেসব দুর্গম এলাকায় ব্যালট পেপার  সকালে পাঠানো সম্ভব হবে না, সেগুলোর বিষয়ে কমিশনের অনুমতি নিয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে। সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশনের পরিপত্র থেকে এ তথ্য জানা যায়।

পরিপত্রে আরও বলা হয়,  নির্বাচনে ব্যবহারের জন্য বিভিন্ন প্রকারের ফরম, প্যাকেট, ম্যানুয়েল, নির্দেশিকা, পোস্টার, লিফলেটসহ যাবতীয় মুদ্রণ সামগ্রী গভর্নমেন্ট প্রিন্টিং প্রেস, তেজগাঁও, ঢাকা থেকে এবং নির্বাচনি দ্রব্যাদি (স্ট্যাম্প প্যাড, অফিসিয়াল সিল, মার্কিং সিল, ব্রাস সিল, লাল গালা, অমোচনীয় কালির কলম, হেসিয়ান বড় ব্যাগ, হেসিয়ান ছোট ব্যাগ, চার্জার লাইট, ক্যালকুলেটর, স্ট্যাপলার মেশিন ও স্ট্যাপলার পিন) নির্বাচন ভবনের গোডাউন থেকে সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

সব নির্বাচনি সামগ্রী জেলায় পৌঁছানোর পর ভালোভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে কোন ঘাটতি বা অতিরিক্ত পাওয়া গেলে বা অন্য কোন অসংগতি দেখা দিলে তাৎক্ষণিকভাবে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব (নির্বাচন পরিচালনা-১) বা সহকারী সচিব (ক্রয় ও মুদ্রণ) কে জানাতে হবে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সিনিয়র জেলা নির্বাচনর অফিসার/জেলা নির্বাচন অফিসার কার্যকর ব্যবস্থা নিবেন।

 

এতে আরও বলা হয়, এ লক্ষ্যে পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট আইন-শৃঙ্খলা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা ও সমন্বয় করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। প্রয়োজন অনুসারে নির্বাচন কমিশন সচিবালয় হতে বিভাগ/আঞ্চলিক বা জেলা পর্যায়ে নির্বাচনী দ্রব্যাদি পরিবহনে বিশেষ নিরাপত্তা পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। বিভাগ/আঞ্চলিক পর্যায় হতে জেলা সভায় এবং জেলা পর্যায় হতে উপজেলা পর্যায়ে দ্রব্যাদি পরিবহন ও বিতরণে অনুরূপ নিরাপত্তা পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।

 

এদিকে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই প্রত্যাহার পর্ব শেষে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন গড়াচ্ছে মাঠের লড়াইয়ে। আজ রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ থেকে প্রতীক বুঝে নিয়ে প্রার্থীরা নামবেন আনুষ্ঠানিক প্রচারে। ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত চলবে এই প্রচার পর্ব।

নির্বাচন কমিশন সচিব মো. জাহাংগীর আলম জানান, এবার দলীয় ও স্বতন্ত্র মিলিয়ে মোট প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী আছেন ১ হাজার ৮৯৬ জন।তাদের মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন প্রায় সাড়ে তিনশ জন, বাকিরা দলীয় প্রার্থী। নিবন্ধিত ৪৪ দলের মধ্যে ভোটে আছে ২৮টি।

 

 

সুত্র: চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF