চট্টগ্রাম, বুধবার, ২২ মে ২০২৪ , ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এক্সপ্রেসওয়েতে প্রথম দিন গাড়ি চলেছে ২৩ হাজার, টোল আদায় সাড়ে ১৮ লাখ

প্রকাশ: ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ ১১:২৪ : পূর্বাহ্ণ

ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে থেকে প্রথম দিন টোল আদায় হয়েছে সাড়ে ১৮ লাখ ৫২ হাজার ৮৮০ টাকা। এই সময়ে এক্সপ্রেসওয়েতে গাড়ি পার হয়েছে ২২ হাজার ৮০৫টি।

এর মধ্যে বিমানবন্দর থেকে ফার্মগেট পর্যন্ত ১২ হাজার ২৪২টি গাড়ি যাতায়াত করে। কুড়িল থেকে মহাখালী ২ হাজার ৪২৫টি, বনানী থেকে বিমানবন্দর ২ হাজার ৮৯২ টি এবং তেজগাঁও থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত চলাচল করেছে, ৫ হাজার ২৪৬ টি গাড়ি।

যানজটে নাকাল নগরবাসীকে কিছুটা স্বস্তি দিতে নির্মিত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের একাংশ গত শনিবার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার ভোর থেকে সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয় উড়াল সড়কটি।

 

 

তবে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েতে দুই ও তিন চাকার কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। এছাড়া এক্সপ্রেসওয়ের কোথাও কোনো যানবাহন দাঁড়াতে পারবে না এবং যাত্রী ওঠানামা করতে পারবে না। পথচারীরা উঠতে ও চলাচল করতে পারবেন না। অবশ্য ছবি তোলার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও কেউ কেউ গাড়ি থামিয়ে ছবি তুলেছেন এমন ঘটনাও ঘটেছে প্রথম দিন।

কাওলা থেকে বনানী, তেজগাঁও, মগবাজার, কমলাপুর ও মানিকনগর হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী পর্যন্ত উড়াল সড়ক হচ্ছে সরকারি-বেসরকারি যৌথ বিনিয়োগে (পিপিপি)। পুরো উড়াল সড়কের দৈর্ঘ্য ১৯ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার। সাড়ে ১১ কিলোমিটার পাড়ি দিতে ১২ মিনিট লাগবে বলে সেতু কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

 

 

তবে এখন বিমানবন্দরের কাওলা থেকে ফার্মগেট অংশ খুলে দেওয়া হয়েছে। ফলে এই পথে আসতে যেসব জায়গায় ওঠানামার সুযোগ আছে সেগুলো সব রোববার থেকেই চালু হয়েছে।

যারা ফার্মগেট, ধানমন্ডি, মোহাম্মদপুর, কাঁঠালবাগান, গ্রিনরোড অথবা শাহবাগ, সেগুনবাগিচা ও পুরান ঢাকা থেকে এসে উড়াল সড়কে উঠতে চান, তাদের যেতে হবে বিজয় সরণি ওভারপাস অথবা তেজগাঁও এলাকায়।

বিজয় সরণি হয়ে র‍্যাংগস ভবন ভেঙে যে ওভারপাসটি তৈরি হয়েছে, সেটিতে উঠে তেজগাঁওয়ে যাওয়ার আগেই উড়াল সড়কের সঙ্গে সংযোগ রয়েছে। তেজগাঁও থেকে বিজয় সরণির দিকে আসতে ওভারপাসে আরেকটি সংযোগ রয়েছে ওঠার জন্য।

 

Print Friendly and PDF