চট্টগ্রাম, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ , ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে : যানচলাচল সহজ করবে

প্রকাশ: ২৫ আগস্ট, ২০২৩ ৩:৫২ : অপরাহ্ণ

দেশের সড়ক যোগাযোগের আরেক আরেক দিগন্ত খুলে দিচ্ছে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে বা উড়াল সড়ক। গাজীপুর, আশুলিয়া, টঙ্গিসহ রাজধানীর আশপাশের শিল্পঞ্চলের রপ্তানি পণ্যবাহী যানবাহন এই উড়াল সড়ক ব্যবহার করে ঢাকার যানজট এড়িয়ে চট্রগ্রাম ও মংলাবন্দরসহ গন্তব্যে যেতে পারবে সহজে। এতে সময় এবং খরচ দুই বাঁচবে। পাশাপাশি রাজধানীবাসীও যানজট এড়াতে পারবেন, এই সড়ক ব্যবহার করে। বিশ কিলোমিটার এই সড়কের ১১ কিলোমিটার অংশ এখন চালুর অপেক্ষায়।

 

 

রাজধানীর উত্তর অংশে গাজীপুর শিল্পাঞ্চল। বেশিরভাগ তৈরি পোশাক শিল্প। এসব রপ্তানি পণ্য রাজধানীর যানজট পেরিয়ে টট্রগ্রাম ও মংলা বন্দরসহ নির্ধারিত গন্তব্যে যাওয়া ছিল বেশ ঝক্কি। তবে সেই কষ্টের দিন এবার ফুরাবে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। এই উড়াল সড়ক ধরে রাজধানীর চিরায়ত যানজট এড়িয়ে কম সময়ে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবে রপ্তানি পণ্যবাহী যানবাহন।

রাজধানীবাসীও নানামুখী সুবিধা পাবে এই উড়াল সড়কের। উত্তরা কিংবা এয়ারপোর্ট এলাকা থেকে কম সময়ে বনানী, তেজগাঁও, ফার্মগেট, কমলাপুরসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় যেতে উড়াল সড়ক ব্যবহার করতে পারবেন।

ঢাকা বিমানবন্দর এলাকার কাওলা থেকে রেল লাইন ধরে কমলাপুর এবং কমলাপুর থেকে চিটাগাং রোডের কুতুবখালী পর্যন্ত এই উড়াল সড়ক প্রায় ২০ কিলোমিটার। এরমধ্যে কাওলা থেকে তেজগাঁও পর্যন্ত সাড়ে ১১ কিলামিটার অংশ এখন যানবাহন চলাচলের জন্য প্রস্তুত।

 

 

এক্সপ্রেসওয়ের এই অংশে গাড়ি ওঠা নামার জন্য ১৫টি র‌্যাম্পের মধ্যে উদ্বোধনের দিন থেকে ১৩টি জায়গা দিয়ে ওঠা বা নামা করা যাবে। যানবাহনের টোলের হারও চূড়ান্ত। প্রাইভেট কার, ট্যাক্সি, জিপ ও ১৬ সিটের মাইক্রোবাসের জন্য টোল ৮০ টাকা, ১৬ আসনের বেশি বাসের জন্য ১৬০ টাকা, মাঝারি ট্রাক ৩২০ টাকা এবং বড় ট্রাক উড়াল পথ পার হতে ৪০০ টাকা টোল দিতে হবে। এই টোল হার এরচেয়ে কম দৈর্ঘ্যরে রাজধানীর হানিফ ফ্লাইভারের চেয়ে তুলনামূলকভাবে কম। এক্সপ্রেসওয়েতে কম গতির কোন যানবাহন চলবে না।

যোগাযোগ খাতের বিশ্লেষকরা বলছেন, জনবহুল এই রাজধানীর জন্য উড়াল সড়ক সময় উপযোগী।

টোলের হার ও মোটরসাইকেল চলতে না দেয়াসহ নানা অপপ্রচার প্রসঙ্গে এই পরিবহন বিশ্লেষক বলেন, সারা পৃথিবীতে এক্সপ্রেসওয়ের কিছু বৈশিষ্ট্য আছে, বাংলাদেশও তার বাইরে নয়।

ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের প্রথম অংশ চালুর পর আগামী বছর কুতুবখালী পর্যন্ত দ্বিতীয় অংশ চালু হবে বলে জানান প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

 

 

সূত্র – বৈশাখী  অনলাইন

Print Friendly and PDF