চট্টগ্রাম, রোববার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ , ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তবে কী অবসান হচ্ছে ভারত-পাকিস্তানের দ্বন্দ্ব?

প্রকাশ: ১৯ আগস্ট, ২০২৩ ৩:২৭ : অপরাহ্ণ

ভারত-পাকিস্তানের রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব সেই গোড়া থেকেই। দুই দেশের রাষ্ট্রীয় দ্বন্দ্বর প্রভাব পড়েছে ক্রীড়াঙ্গনেও। ক্রিকেট-ফুটবল-হকি, কিংবা যে কোনো খেলাই চরম উত্তেজনা তৈরি হয়। তবে এই দ্বন্দ্ব সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য করা যায় ক্রিকেটে।

রাষ্ট্রীয় দ্বন্দ্বের কারণে দুই দেশের মধ্যকার সিরিজ বন্ধ আছে প্রায় এক যুগ ধরে। ফলে ক্রিকেটের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দেশ দুটির লড়াই খুব একটা দেখার সুযোগ হয় না ক্রিকেটভক্তদের। তাদের দ্বৈরথ দেখার জন্য কেবল আইসিসি কিংবা এসিসির ইভেন্টের দিকে তাকিয়ে থাকতে হয় দর্শকদের।

আসন্ন এশিয়া কাপের আয়োজক পাকিস্তান। অথচ ভারতের বাধার কারণে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে যৌথভাবে টুর্নামেন্টটি আয়োজন করতে হচ্ছে পাকিস্তানকে। নিরাপত্তার অজুহাতে পাকিস্তান সফর করবে না টিম ইন্ডিয়া। তাই শ্রীলঙ্কাকে ভেন্যু হিসেবে বেচে নিতে হয়েছে পাকিস্তানকে।

আগামী ৩০ আগস্ট পাকিস্তানের মুলতানে পাকিস্তান-নেপালের ম্যাচ দিয়ে পর্দা উঠবে এশিয়া কাপের। তবে ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে শ্রীলঙ্কা। এদিকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) সচিব এবং এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সভাপতি জয় শাহকে উপস্থিত থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।

মুলতানের ওই ম্যাচে অবশ্য জয় শাহা ছাড়াও পিসিবির পক্ষ থেকে আমন্ত্রণ পেয়েছে এসিসির সঙ্গে যুক্ত অন্যান্য ক্রিকেট বোর্ডের প্রধানরা। ভারত-পাকিস্তানের ক্রিকেটীয় সম্পর্ক উন্নয়নে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জয় শাহাকে মূলত আমন্ত্রণ জানায় পিসিবি।

 

পিসিবির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র প্রকাশ করেছে যে, শাহকে আমন্ত্রণ জানানোর কারণ দুই দেশের ক্রিকেটীয় সম্পর্কের উন্নতি করা। তাদের প্রত্যাশার পিসিবির আমন্ত্রনে সাড়া দিবেন তিনি।

সূত্রটি বলেছেন, ডারবানে আইসিসি বৈঠকে জয় শাহকে মৌখিকভাবে সামনাসামনি আমন্ত্রণ জানান পিসিবির চেয়ারম্যান জাকা আশরাফ।’ পাকিস্তানি গণমাধ্যম তখন জানিয়েছিল যে, জয় শাহ পিসিবির আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। যদিও ভারতীয় বোর্ডের তরফে তা অস্বীকার করা হয়েছে।

 

 

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্কের বিষয়ে সচেতন। সূত্রটি বলেছে যে পিসিবি জয় শাহকে আমন্ত্রণ জানিয়ে, কারণ রাজনীতির সঙ্গে খেলাধুলাকে মিশ্রিত করে না তা তারা দেখাতে চায়। ‘মূলত ভারতের সঙ্গে ক্রিকেট সম্পর্কের বিষয়ে পাকিস্তানের মনোনীত অবস্থানকে তুলে ধরা যে এটি খেলাধুলার সঙ্গে রাজনীতিকে মিশ্রিত করে না।’

 

 

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

Print Friendly and PDF