চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪ , ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পুঁজিবাজারে ফ্লোর প্রাইস সংকট দ্রুত সমাধানের পরামর্শ

প্রকাশ: ১৮ আগস্ট, ২০২৩ ৪:৫৩ : অপরাহ্ণ

দেশের পুঁজিবাজারের লেনদেন কমতে কমতে গতসপ্তাহে তিনশো কোটি টাকার নিচে নেমেছে। আর ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক তিন কার্যদিবসেই ছিল নিম্নমুখী। শেয়ারর সর্বনিম্ন দামের সীমা বা ফ্লোর প্রাইসের কারণে বড় বিনিয়োগ হচ্ছে না বলে মনে করেন বাজার বিশ্লেষকরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে ফ্লোর প্রাইস রাখা হবে নাকি প্রত্যাহার করা হবে, সে বিষয়ে দ্রুত ডিএসই ও বিএসইসিকে সিদ্ধান্তনেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

 

 

টানা দুই কার্যদিবস বড় দরপতনের পর গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে দেশের পুঁজিবাজারে মূল্যসূচকের ঊর্ধ্বমুখি ভাব দেখা গেছে। কিন্তু লেনদেনে ছিল খরা। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন কমে ৩০০ কোটি টাকার নিচে নেমেছে। চলতি বছরের ২৮শে মার্চের পর ডিএসইতে এই প্রথম ৩০০ কোটি টাকার কম লেনদেন হয়েছে। তবে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ৩৪ পয়েন্ট বেড়ে ৬ হাজার ২৫৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

 

 

বাজার বিশ্লেষকরা মনে করেন, নানা কারণে পুঁজিবাজারে আগ্রহ কম বিনিয়োগকারীদের। এর মধ্যে ফ্লোর প্রাইস অন্যতম।

পুঁজিবাজারে প্রায় একবছর ধরে শেয়ারের দামের সর্বনিæ মূল্য স্তরের ক্ষেত্রে সীমারেখা দেয়া আছে। এটা কতটুকু পুঁজিবাজার বান্ধব সেই প্রশ্নও তুলেছেন বাজার বিশ্লেষকরা।

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ১৫৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৮টির। আর ১৬০টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

 

 

গত সপ্তাহের পুঁজিবাজারের চিত্র

কার্যদিবস                     লেনদেন (টাকা)                 সূচক (পয়েন্ট)

রবিবার                     ৪২৫ কোটি ৫১ লাখ                 ৬২৮৭ লাল

সোমবার                   ৪১৩ কোটি ৭৫ লাখ                 ৬২৫৭ লাল

বুধবার                     ৩৫১ কোটি ৫৩ লাখ                 ৬২২০ লাল

বৃহস্পতিবার               ২৯৯ কোটি ৫২ লাখ                ৬২৫৪ সবুজ

 

 

সূত্র – বৈশাখী  অনলাইন

Print Friendly and PDF