চট্টগ্রাম, রোববার, ১৯ মে ২০২৪ , ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্বস্তি নেই সবজির বাজারে!

প্রকাশ: ২১ জুলাই, ২০২৩ ২:৪২ : অপরাহ্ণ

সকাল থেকে  একাধিক বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ, আদা, রসুন, আলু ও শাক-সবজির পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও সেই অর্থে দাম কমেনি। গত কয়েক সপ্তাহের ধরেই এসব নিত্যপণ্যের দাম চড়া। উল্টো কোরবানির ঈদের পর থেকে টমেটো, কাঁচা মরিচের দাম থেমে থেমে বাড়ছে। এ দুই পদের সবজি কিনতে ক্রেতাকে বাজারভেদে কেজিপ্রতি গুনতে হচ্ছে ৩০০ টাকার কিছু কমবেশি।

বাজারে আলুর কেজি ৪৫ থেকে ৫০ টাকা, পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৭৫ টাকায়।

আদার দাম প্রায় দুই মাস ধরে ৩০০ টাকার উপরে। এরমধ্যে চলতি সপ্তাহে নতুন করে রসুনের দাম কেজিতে প্রায় ৪০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২২০ টাকায়।

বাজারে লাউ আকার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। শসা প্রতি কেজি ৭০-৮০; লম্বা ও গোল বেগুন ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভারতীয় টমেটো ২৪০; করলার কেজি ৬০-৭০ টাকা। চাল কুমড়া প্রতিটি ৬০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৪০ টাকা কেজি, চিচিঙ্গা ৮০, পটল ৫০-৬০, ঢেঁড়স ৬০, কচুর লতি ৮০, পেঁপে ৩০-৪০, বরবটি ৮০ ও ধুন্দুল ৫০-৬০ টাকা কেজি। কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকায়। কাঁচা কলার হালি ৩০; লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ১০-১৫ টাকায়।

সবজি বিক্রেতা মো.আমিন বলেন, গত সপ্তাহের তুলনায় এ সপ্তাহে সবজির দাম কম। সরবরাহ বাড়ায় দাম কমেছে। সরবরাহ কমলে আবার বাড়তে পারে।

এসব বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজের কেজি ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৭৫ টাকা। বাজারে আদার কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ২০০ টাকায়। চায়না আদার কেজি বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা। বাজারে আলু বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকায়। আলু-পেঁয়াজ বিক্রেতা মো. কবির বলেন, ভারতীয় পেঁয়াজ বাজারে আসা দাম কমেছে। যদি ভারতীয় পেঁয়াজ না আসতো তাহলে দেশি পেঁয়াজ মানুষকে কিনতে হতো ২০০ টাকা দরে।

বাজারে খোলা চিনি প্রতি কেজি ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা। বাজারে খোলা আটার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬৫ টাকায়। প্যাকেট আটার কেজি ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ২ কেজির প্যাকেট আটা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। এসব বাজারে দেশি মসুরের ডালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকা। ইন্ডিয়ান মসুরের ডালের কেজি ৯০-১০০ টাকা। সয়াবিন তেলের লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৭৮ টাকায়। লবণের কেজি ৩৮-৪০ টাকা।

ফার্মের মুরগির ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়। হাঁসের ডিমের ডজন ২১০। দেশি মুরগির ডিমের ডজন ২১০ টাকা। ডিম বিক্রেতা মো. মাসুদ বলেন, দাম আর কমেছে না। পাড়া-মহল্লার দোকানের একটু বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। ডিমের দাম আরও বাড়ার সম্ভাবনা নেই।

অন্যদিকে গত সপ্তাহে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১০ টাকা কমিয়েছে ১৭৯ টাকা নির্ধারণ করে সরকার। তবে স্বস্তি ফেরেনি চিনির দামে। প্রতি কেজি চিনি কিনতে গুনতে হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা।

 

 

সূত্র – নিউজ ২৪ অনলাইন

Print Friendly and PDF