চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪ , ১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এশিয়া কাপ নিয়ে নতুন নাটক, সূচি পরিবর্তনের দাবি পাকিস্তানের

প্রকাশ: ১৫ জুলাই, ২০২৩ ৪:৪৬ : অপরাহ্ণ

২০২৩ এশিয়া কাপ নিয়ে নাটক থামছেই না। এবার টুর্নামেন্টের সূচি পরিবর্তনের দাবি জানালো পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ক্রিকেট পাকিস্তানের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

এতে বলা হয়, এ বছর এশিয়া কাপের ৪টি ম্যাচ হওয়ার কথা রয়েছে পাকিস্তানে। আর ৯টি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা আছে শ্রীলঙ্কায়। তবে এর মধ্যে ৪টিতেই বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তাই ঘরের মাঠে আরও ম্যাচ আয়োজনের দাবি জানিয়েছে পিসিবি। ইতোমধ্যে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) সামনে এ প্রস্তাব উত্থাপন করেছে তারা।

পিসিবি বলছে, ভারত ছাড়া এশিয়া কাপে অংশ নিতে যাওয়া অন্যান্য দল পাকিস্তানে খেলতে রাজি। ফলে এখানে বেশি ম্যাচ আয়োজন করলে কোনো সমস্যা হবে না।

 

পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী, এবার পাকিস্তানের এক শহরে এশিয়া কাপের ৪ ম্যাচ হওয়ার কথা। সব খেলা হওয়ার কথা রয়েছে লাহোরে। তবে এখন মুলতানেও ম্যাচ আয়োজনের দাবি জানিয়েছে পিসিবি। এখানেই পাকিস্তান-নেপালের দ্বৈরথ দিয়ে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ের পর্দা উন্মোচন করতে চাচ্ছে তারা।

নতুন করে বাংলাদেশ অথবা আফগানিস্তানের ম্যাচগুলো হোমগ্রাউন্ডে আয়োজন করতে মুখিয়ে পাকিস্তান। দক্ষিণ আফ্রিকার ডারবানে এশিয়ান ক্রিকেট কর্মকর্তাদের সঙ্গে এ নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা করেছেন পিসিবি ব্যবস্থাপনা কমিটির প্রধান জাকা আশরাফ। দুবাইতে এসিসির বৈঠকে এ বিষয়ে আরও আলোচনা হবে।

 

গতকাল শুক্রবার (১৪ জুলাই) ডারবান ছেড়েছেন আশরাফ এবং অন্যান্য বোর্ড কর্মকর্তারা। এদিন সেখানেই আসন্ন এশিয়া কাপের সূচি ঘোষণার কথা ছিল। তবে পিসিবির নতুন দাবির মুখে তা স্থগিত হয়ে যায়।

এরই মধ্যে দুবাইয়ে পৌঁছেছেন আশরাফরা। ধারণা করা হচ্ছে, এখানেই চূড়ান্ত সূচি প্রকাশ করা হবে। তারা আশা করছেন, আরও ম্যাচ আয়োজনের সুযোগ পাবে পাকিস্তান।

 

 

আগের সূচি অনুযায়ী, আগামী ৩১ আগস্ট এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচ মাঠে গড়ানোর কথা। সেই অনুসারে, পাকিস্তান-নেপাল, আফগানিস্তান-বাংলাদেশ, বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা এবং শ্রীলঙ্কা-আফগানিস্তানের খেলা হওয়ার কথা রয়েছে পাকিস্তানে।

এবারের এশিয়া কাপে নিজেদের ঘরের সব ম্যাচ ডাম্বুলায় আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। ম্যাচগুলো চলাকালীন সেখানে বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকা সত্ত্বেও এ অবস্থানে এখনও অটল রয়েছে তারা।

 

 

সূত্র – চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF