চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪ , ১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সব বিভাগেই বৃষ্টিপাত বাড়তে পারে

প্রকাশ: ১৩ জুলাই, ২০২৩ ১২:০৯ : অপরাহ্ণ

দেশের সব বিভাগেই আজ বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) বৃষ্টিপাত কিছুটা বাড়তে পারে। কাল শুক্রবার থেকে এর তীব্রতা আরও বাড়বে। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, সামনের সপ্তাহের দ্বিতীয় ভাগে বঙ্গোপসাগরে একটি লঘুচাপ সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সারা দেশেই থেমে থেমে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

 

শুক্রবার থেকে এর তীব্রতা কিছুটা বাড়তে পারে। চলতি মাসের ১৮/১৯ তারিখে বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের সৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, এটি পরবর্তী সময়ে নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে।
আজ দেশের পাঁচ বিভাগের অনেক জায়গায় এবং তিন বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এতে বলা হয়েছে, আজ রংপুর, ময়মনসিংহ, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ সহ বৃষ্টি হতে পারে।

ঢাকা, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এমনটা হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে ভারি বৃষ্টি হতে পারে। সারা দেশে দিনের তাপমাত্র কিছুটা হ্রাস ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

এদিকে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদ-নদীর পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে।

 

 

উত্তরাঞ্চলের তিস্তা নদীর পানিও আজ বেড়ে ডালিয়া পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে, উত্তরাঞ্চল ও তৎসংলগ্ন ভারতের উজানে ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। ফলে এ সময় এই অঞ্চলের তিস্তা, ধরলা ও দুধকুমার নদ-নদীর পানি দ্রুত বাড়তে পারে। এ ছাড়া ব্রহ্মপুত্র-যমুনা ও পদ্মার পানিও বাড়বে শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত।
বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের সহকারী প্রকৌশলী মেহেদী হাসান গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে আর এক দিন।

ফলে এখানকার নদ-নদীর পানি বাড়লেও বন্যার সম্ভাবনা নেই। উত্তরাঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকায় তিস্তা, ধরলা ও দুধকমার নদীর পানি আজও বাড়তে পারে। তিস্তা নদীতে পানি কিছু সময়ের জন্য বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে, আবার নেমে যেতে পারে। ’

 

 

তিস্তার পানি বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই

গতকাল সকাল ৬টায় নীলফামারীতে ডালিয়ায় তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে নদীর পানি বিপৎসীমার তিন সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। সকাল ৯টায় পানি কিছুটা কমে পাঁচ সেন্টিমিটার নিচে নামে। এরপর দুপুর ১২টায় আরো পানি বেড়ে তিন সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। বিকেল ৩টায় কিছুটা কমে আট সেন্টিমিটার নিচে নামে।

নদীর পানিবৃদ্ধির ফলে জেলার ডিমলা উপজেলার পূর্ব ছাতনাই, পশ্চিম ছাতনাই, টেপাখড়িবাড়ি, খালিশাচাপানী, ঝুনাগাছ চাপানী, গয়াবাড়ি ও খগাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলের ১৫টি চর গ্রামে পানি ঢুকে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ার কথা জানান স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। বিপদের শঙ্কায় রয়েছে নিম্নাঞ্চলের গ্রামের মানুষ।

 

 

সূত্র – নিউজ ২৪  অনলাইন

Print Friendly and PDF