চট্টগ্রাম, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪ , ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সংকটেও এশিয়ার ক্রেতাদের পুরোপুরি তেল দেবে আরামকো

প্রকাশ: ১২ জুলাই, ২০২৩ ৪:২৯ : অপরাহ্ণ

বিশ্বব্যাপী সামষ্টিক অর্থনৈতিক ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। এটি মোকাবিলায় আগামী আগস্টেও দৈনিক ১ মিলিয়ন ব্যারেল তেল উত্তোলন হ্রাসের ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। বিশ্বের শীর্ষ রপ্তানিকারক দেশটির এ সিদ্ধান্তে বিশ্ববাজারে সরবরাহ সংকট সৃষ্টির আশঙ্কা করা হচ্ছে। ফলে চুক্তি অনুযায়ী, জ্বালানি পণ্যটি পাওয়া নিয়ে এশিয়ার ক্রেতাদের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। তবে তাদের আশ্বস্ত করেছে সৌদি আরামকো। ওই মাসেও এশিয়ার কিছু ক্রেতার কাছে চুক্তির পুরোপুরি তেল সরবরাহ করবে তারা।

 

 

ইতোমধ্যে তাদের এ নিশ্চয়তা দিয়েছে সৌদির রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিটি। বিষয়টির সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত কয়েকটি সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

গত সপ্তাহে সৌদি জানায়, আসন্ন আগস্টেও প্রতিদিন ১ মিলিয়ন ব্যারেল তেল উৎপাদন কমাবে বিশ্বের সর্ববৃহৎ উৎপাদনকারী দেশটি। সেই লক্ষ্যে দ্বিতীয় মাসের মতো এশিয়ান গ্রাহকদের কাছে পাঠানো বেশিরভাগ অপরিশোধিত গ্রেডের দাম বাড়িয়েছে তারা।

 

 

তবে আগে চুক্তি হওয়া দামেই আসছে মাসে জ্বালানি পণ্যটি দেবে আরামকো। তা সত্ত্বেও সৌদির কাছে তেল কম চেয়েছে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ ভোক্তা চীন। বলছে, আরামকোর জ্বালানি পণ্যটির দর চড়া। ফলে সাশ্রয়ী মূল্যে স্পট মার্কেটে অন্য কারও কাছ থেকে তা কিনবে তারা। চারটি বাণিজ্যিক সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

সম্প্রতি তেল উৎপাদন কমানোর আরামকোর ঘোষণার পর অপরিশোধিত ব্রেন্টের এবং ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েটের (ডব্লিউটিআই) দাম বেড়ে গেছে। এছাড়া একই সময়ে আরব লাইট ক্রডের দর বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে এর আগে কম দামে কেনা তেল আগামী মাসে সৌদি দেবে কি না, তা নিয়ে আশঙ্কায় ছিলেন এশীয় ক্রেতারা।

 

 

বিশ্বে তেলের সর্ববৃহৎ ক্রেতা বাজার এশিয়া। সেখানে বিক্রয় মূল্যে জ্বালানি পণ্যটি আরামকোর সরবরাহ করার পেছনে কারণও আছে। সেটা হলো তৃতীয় প্রান্তিকে এ অঞ্চলে চাহিদা কমতে পারে। মূলত সেই শঙ্কায় চুক্তি বজায় রেখেছে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ দামি কোম্পানিটি।

 

 

সূত্র – চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF