চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ , ১১ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

১০০ টাকা লিটারে মিলবে ধানের কুঁড়ার তেল

প্রকাশ: ২৩ জুন, ২০২৩ ৪:১২ : অপরাহ্ণ

৮০ কোটি টাকায় ৫০ লাখ লিটার রাইস ব্র্যান অয়েল (ধানের কুঁড়ার তেল) কিনবে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। প্রতি লিটার তেলের দাম পড়বে ১৬০ টাকা। স্বল্প আয়ের এক কোটি পরিবারের কাছে সাশ্রয়ী মূল্যে যে চাল, ডাল, পেঁয়াজ, ভোজ্যতেল বিক্রি করা হচ্ছে সে তালিকায় ঢুকবে এ তেল।

বৃহস্পতিবার (২২ জুন) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি বৈঠকে তেল কেনার প্রস্তাবটি অনুমোদিত হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) মো. মাহমুদুল হোসাইন খান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

বৈঠকের পর জানানো হয়, কোনো ধরনের দরপত্র ছাড়া সরাসরি ক্রয়পদ্ধতিতে রাইস ব্র্যান বা কুঁড়ার তেল কেনা হচ্ছে। যশোরের মজুমদার ব্র্যান অয়েল মিলস লিমিটেড এবং ঢাকার মজুমদার প্রোডাক্টস লিমিটেডের কাছ থেকে ২৫ লাখ লিটার করে মোট ৫০ লাখ লিটার তেল কেনা হবে। দুটি কোম্পানিই দুই ভাইয়ের মালিকানাধীন বলে জানা গেছে।

টিসিবির চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের বার্ষিক ক্রয় পরিকল্পনার মধ্যে ২৮ কোটি ৪৩ লাখ ৪৭ হাজার ৮২৬ লিটার ভোজ্যতেল কেনার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এ পর্যন্ত ২২ কোটি ৫১ লাখ ৩৭ হাজার ৬০২ লিটার ভোজ্যতেল কেনার চুক্তি হয়েছে। সে পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই এ দফায় ৫০ লাখ লিটার তেল কিনছে সরকার। অর্থবছর শেষ হওয়ার আর বাকি আছে এক সপ্তাহ।

 

 

বিজ্ঞানীদের গবেষণার বরাত দিয়ে বলা হচ্ছে, অন্যান্য ভোজ্যতেলের তুলনায় ধানের কুঁড়ার তেলে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকারক মাত্রা কম। আবার চিকিৎসকেরা বলছেন, এতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অরাইজানল রয়েছে এবং এ তেল মানুষের রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। অরাইজানল ইনসুলিন প্রতিরোধে সহায়তা করে। সাধারণ মানুষের ধারণা, বোতলে তেলের রংটা একটু হালকা হলে ভালো হয়। কিন্তু তা করতে গেলে তেল থেকে উপকারিতা কম পাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

টিসিবির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আরিফুল হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, বাজারে সয়াবিন তেলের চেয়ে রাইস ব্র্যান অয়েলের দাম একটু বেশি। প্রচলিত ভোজ্যতেলের চেয়ে এটি তুলনামূলক স্বাস্থ্যকর। তাই আমরা এবার এ তেল কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে সাশ্রয়ী দামেই অর্থাৎ সয়াবিনের দামেই তা বিক্রি করা হবে।’ রাইস ব্র্যান কেনার ক্ষেত্রে ডলার বিদেশে না যাওয়া এবং দেশীয় কোম্পানিকে উৎসাহিত করা-এ দুটো বিষয়ও বিবেচনায় রাখা হয়েছে বলে জানান টিসিবি চেয়ারম্যান।

 

 

সূত্র – চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF