চট্টগ্রাম, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪ , ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘আর কোনো দিন কলম খাব না’, বাড়ি ফিরলেন সেই মোতালেব

প্রকাশ: ১৩ জুন, ২০২৩ ১২:০৯ : অপরাহ্ণ

সিরাজগঞ্জ শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরেছেন আব্দুল মোতালেব। সোমবার (১২ জুন) চিকিৎসা শেষ করে হাসপাতাল ছাড়েন। হাসপাতাল ছাড়ার সময় তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান চিকিৎসকরা।

মোতালেব হোসেন সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার খুকনি আটার দাগ গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে। তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন। পরপর দুই বার বিনা অস্ত্রোপচারে মোট ২৩টি কলম বের করা হয় মোতালেবের পেট থেকে। তিনি চার থেকে পাঁচ বছরের বিভিন্ন সময়ে ২৩টি কলম আস্ত গিলে খেয়েছিলেন বলে চিকিৎসকদের ধারণা।

 

হাসপাতাল ছাড়ার সময় মোতালেব বলেন, ‘আমি আর কোনো দিন কলম খাব না। অনেক দিন আগে একটা কলম খেয়েছিলাম। কিন্তু সেই কলম আর বের হয় না। তাই ভাবলাম আরেকটা খাইলে মনে হয় বের হবে। কিন্তু সেটাও বের হয় না। তাই এক এক করে অনেকগুলো কলম খেয়ে ফেলেছি। আমি পেটের ব্যথায় অনেক কষ্ট করেছি। আজ আমি সুস্থ। আর কোনো দিন এ সব খাব না।

 

 

গত ২৪ মে পেটের ব্যথা নিয়ে সিরাজগঞ্জ শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ভর্তি হন মোতালেব। এরপর ২৫ মে দেশে প্রথমবারের মতো অপারেশন ছাড়াই এন্ডোস্কপির মাধ্যমে তার পেটের ভেতর থেকে ১৫টি আস্ত কলম বের করেছেন চিকিৎসকরা। পরে ২৯ মে দ্বিতীয়বারের মতো এন্ডোস্কপির মাধ্যমে মোতালেবের পেট থেকে আরও ৮টি কলম বের করে আনা হয়। বিনা অপারেশনে দুই দফায় তার পেট থেকে মোট ২৩টি কলম বের করেন চিকিৎসকরা।

 

এর আগে মোতালেবের মা লাইলী বেগম বলেন, এক বছর ধরে আমার ছেলে পেটের ব্যথায় ভুগছিল। বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা করার পরও সে সুস্থ হয়নি। ১৫ দিন আগে সমস্যা আরও বাড়ে তার। তখন সে খেতে পারতো না, খালি বমি করতো। এ কারণে তাকে এ হাসপাতালে আনা হয়। এখানে আনার পর তাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পেটের মধ্য থেকে কলমগুলো বের করে এনেছেন চিকিৎসকরা।

তিনি আরও বলেন, ১২ বছর ধরে আমার ছেলে মানসিক রোগী। তাকে মানসিক চিকিৎসকও দেখানো হয়েছে। সে কলমগুলো না বুঝেই খেয়ে ফেলেছে।

 

 

সূত্র – চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF