চট্টগ্রাম, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ , ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাতের ব্যবধানে হিলিতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা

প্রকাশ: ৪ জুন, ২০২৩ ৪:১৫ : অপরাহ্ণ

আমদানির অনুমতি না মেলায় ও সরবরাহ কমের অজুহাতে আবারও একরাতের ব্যবধানে দিনাজপুরের হিলিতে দেশিয় পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা করে। শনিবার (৩ জুন) যে পেঁয়াজ ৮০টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছিল। সেই পেঁয়াজ রোববার (৪ জুন) বিক্রি হচ্ছে ৮৫ টাকা কেজি দরে। খুচরাতে যা ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে পেঁয়াজের দাম বাড়তে থাকায় বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া দিনমজুরসহ নিন্ম আয়ের মানুষজন। রোবার সরেজমিন হিলি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বাজারের প্রত্যেকটি দোকানেই দেশিয় পেঁয়াজের পর্যাপ্ত পরিমানে সরবরাহ রয়েছে। দোকানগুলোতে পেঁয়াজ ঢেলে রাখাসহ বেশ কিছু বস্তাবোঝাই পেঁয়াজ লক্ষ্য করা গেছে। এরপরেও পেঁয়াজের দাম রাতের ব্যবধানে বাড়তি হচ্ছে যদিও ব্যবসায়ীদের দাবী সরবরাহ কম। এদিকে ক্রেতাদের দাবি, দোকানে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ রয়েছে তারপরেও তারা দাম বাড়িয়েই চলছে।

 

 

হিলি বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা রুমা পারভীন বলেন, বাজারে যেন পেঁয়াজের দামে আগুন লেগেছে সেই আগুন নেভানোর মত কেউ নেই। প্রত্যেকটি দোকানেই পর্যাপ্ত পরিমানে পেঁয়াজ রয়েছে তারপরেও দোকানিরা সরবরাহ কমের অজুহাতে তাদের ইচ্ছামত প্রতিদিন পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছে।

 

 

হিলি বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা খাদেমুল ইসলাম বলেন, আমি ভ্যান চালিয়ে সারাদিন যে আয় করি তাই দিয়ে চাল ডাল তেলসহ অন্যান্য খরচ কিনে সংসার চালায়। একেতো আয় রোজগার তেমন একটা নেই এর উপর চাল ডাল তেল সবকিছুর দাম বেশী যার কারণে সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

 

 

হিলি বাজারের পেঁয়াজ ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে। যার কারণে দেশিয় পেঁয়াজ দিয়েই দেশের বাজারে পেঁয়াজের যে চাহিদা সেটি
মিটছিল। কিন্তু খরার কারণে পেঁয়াজের উৎপাদন কম হওয়ায় সম্প্রতি দেশিয় পেঁয়াজের সরবরাহ কমতে শুরু করেছিল। সেই সাথে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী রয়েছে যারা কিনা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধের কারনে বেশী দামে দেশীয় পেঁয়াজ বিক্রির আশায় পেঁয়াজ মজুত করে রাখতে শুরু করেন। এতে করে দেশের বাজারে চাহিদার তুলনায় পেঁয়াজের সরবরাহ কমায় পেঁয়াজের দাম বাড়তে শুরু করে।

 

 

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক হারুন উর রশীদ বলেন, দেশিয় কৃষকের স্বার্থ বিবেচনা করে তাদের উৎপাদিত পেঁয়াজের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে ও পেঁয়াজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে পেঁয়াজ চাষে কৃষকদের উদ্ভুদ্ধ করতে গত ১৫ই মার্চ থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি (আইপি) দেয়া বন্ধ করে দেয় সরকার। এতে করে ১৬ই মার্চ থেকে হিলি স্থলবন্দরসহ দেশের সব স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে।

 

 

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর দিনাজপুর এর সহকারি পরিচালক মমতাজ বেগম বলেন, পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি রুখতে ও দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখতে আমরা নিয়মিতভাবে বাজার মনিটরিং করছি। কেউ যদি অহেতুক কোন পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি করে সেক্ষেত্রে তার বিরুদ্ধে আর্থিক জরিমানাসহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 

সূত্র – চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF