চট্টগ্রাম, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪ , ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মে মাসের ১৬ দিনে মোংলা বন্দর দিয়ে আমদানি হয়েছে ১ হাজার ৬২৯টি গাড়ি

প্রকাশ: ২১ মে, ২০২৩ ৪:৫০ : অপরাহ্ণ

মোংলা বন্দরে গত ২ সপ্তাহে আবারও গাড়ী এসেছে প্রায় হাজারটি। দেশে ডলার সংকট কেটে যাওয়ায় পুরোদমে শুরু হয়েছে রিকন্ডিশন গাড়ি আমদানি। এ নিয়ে চলতি মাসে মাত্র ১৬ দিনের মধ্যে আমদানিকারকরা মোংলা বন্দরের মাধ্যমে এনেছেন বিলাসবহুল ১ হাজার ৬২৯টি গাড়ি।

শনিবার (২০ মে) দুপুরে জাপান থেকে বিলাসবহুল ৯২৬টি গাড়ির একটি চালান মোংলা বন্দরে এসে নোঙর করে। মালেয়শিয়া পতাকাবাহী ‘এমভি মালেয়শিয়া স্টার’ নামের গাড়িবাহি জাহাজটি মোংলা বন্দরের ৮ নম্বর জেটিতে নোঙ্গর করার পরই বিকেলে আমদানিকৃত এসব গাড়ি খালাস করা হয়।

 

 

গত ৪ মে একই জাহাজে করে জাপান থেকে মোংলা বন্দরে আনা হয় ৭০৩টি আমদানিকৃত গাড়ি। ডলার সংকটের কারণে গাড়ি আমদানি কমে যাওয়ায় গত এক বছরে ৪০০ কোটি টাকা রাজস্ব হারায় বলে জানায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ ও কাস্টমস হাউজ।

 

 

মালেয়শিয়া স্টার নামের জাহাজটির স্থানীয় শিপিং এজেন্ট এনশিয়েন্ট স্টীম শিপের ব্যবস্থাপক মো. ওহিদুজ্জামান জানান, এই চালানে মোট ১ হাজার ৩৭৬টি গাড়ি আমদানি করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪৫০টি গাড়ি গত ১৮ মে চট্টগ্রাম বন্দরে খালাস করা হয়। বাকি ৯২৬টি গাড়ি শনিবার (২০ মে) দুপুরে মোংলা বন্দরের মাধ্যমে খালাস হয়েছে।

বিলাসবহুল এসব গাড়ি সিঙ্গাপুরের একটি বন্দর থেকে বোঝাই করে গত ১২ মে জাহাজটি মোংলা বন্দরের উদ্দেশে ছেড়ে আসে। শনিবার দুপুরে জাহাজটি মোংলা বন্দরের ৮ নম্বর জেটিতে নোঙ্গর করার পর আমদানিকৃত এসব গাড়ি জাহাজ থেকে খালাস করা হয়। এসব গাড়ির মধ্যে রয়েছে এক্সিও, প্রিমিও, এলিয়ন, অ্যাকুয়া, প্যারাডো ও মিনিবাসসহ একাধিক ব্যান্ডের গাড়ি।

 

 

আগামী ৩ জুন মালেয়শিয়া স্টার জাহাজে করে আরও একটি গাড়ির চালান আসবে বলেও জানান এই শিপিং এজেন্ট। অর্থনৈতিক সংকটের আগে মোংলা ও চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে মাসে দেড়-দুই হাজার গাড়ি আমদানি হতো। গত ৯ মাসে দেশে তেমন গাড়ি আমদানি করা যায়নি। জানুয়ারি মাসের পরে ডলারসংকট কাটতে শুরু করায় ব্যাংকগুলোতে এলসি খোলা যাচ্ছে। যার ফলে এখন দেশে পুরোদমে গাড়ি আমদানি শুরু হয়েছে।

 

 

মোংলা কাস্টমস হাউসের যুগ্ম কমিশনার মাহফুজ আহমেদ জানান, গাড়ি আমদানি থেকে মোংলা কাস্টমস বছরে সর্বোচ্চ রাজস্ব আয় করে থাকে। গত বছরে গাড়ি আমদানি কম হওয়ায় মোংলা কাস্টমসের ৪০০ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় কম হয়েছে।

 

Print Friendly and PDF