চট্টগ্রাম, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪ , ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চিনি উৎপাদন আরও কমবে

প্রকাশ: ২৬ এপ্রিল, ২০২৩ ২:২৫ : অপরাহ্ণ

 

ভারতে ২০২২-২৩ বিপণন বছরে চিনি উৎপাদন আরও কমবে। আলোচ্য সময়ে দেশটিতে ৩২ দশমিক ৮ মিলিয়ন টন ভোগ্যপণ্যটি উৎপাদিত হতে পারে। আগের পূর্বাভাসের চেয়ে যা ৩ দশমিক ৫ শতাংশ কম।

 

 

 

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে বিজনেস রেকর্ডারের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে। এতে বলা হয়, বৈরি আবহাওয়ায় ভারতের প্রধান প্রধান অঙ্গরাজ্যে আখ উৎপাদন কমেছে। ফলে চিনি কম উৎপাদিত হবে।

 

 

বিশ্বের দ্বিতীয় শীর্ষ চিনি উৎপাদক ভারত। কম উৎপন্ন হওয়ায় রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দেশটির সরকার। এতে বিশ্ববাজারে ভোগ্যপণ্যটির দাম বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় শীর্ষ উৎপাদনকারী ব্রাজিল ও থাইল্যান্ড চালান বাড়াতে বাধ্য হয়েছে। তাতেও কাজ হচ্ছে না।

 

 

ইন্ডিয়ান সুগার মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (আইএসএমএ) প্রেসিডেন্ট আদিত্য ঝুনঝুনওয়ালা বলেন, আখ চাষে যখন প্রচুর বৃষ্টির দরকার ছিল, তখন হয়নি। আবার যেসময় প্রয়োজন ছিল না, সেসময় ব্যাপক হয়েছে। ফলে উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে।

 

 

 

চলতি বিপণন বছর শেষ হবে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর। এর আগে এসময়ে ৩৪ মিলিয়ন টন চিনি উৎপাদনের আভাস দিয়েছিল আইএসএমএ। আগের মৌসুমে যা ছিল রেকর্ড ৩৫ দশমিক ৮ মিলিয়ন টন।

২০২২-২৩ বিপণন বছরের সূচনা হয়েছিল গত অক্টোবরে। সেসময় চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৩৬ দশমিক ৫ মিলিয়ন টন।

তবে গত ডিসেম্বরে ভোগ্যপণ্যটির উৎপাদন কমার প্রথম খবর প্রকাশ করে রয়টার্স। এরপর থেকে শুধুই হ্রাসের সংবাদ সামনে আসছে।

আলোচিত বছরে ভারতীয় রপ্তানিকারকদের ৬ দশমিক ১ মিলিয়ন টন চিনি রপ্তানির অনুমোদন দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকার। ২০২১-২২ বিপণন বছরে যা ছিল রেকর্ড ১১ দশমিক ২ মিলিয়ন টন।

প্রধানত ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশ, মালয়েশিয়া, সুদান, সোমালিয়া ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে চিনি রপ্তানি করে ভারত। দেশটি সরবরাহ কমানোয় সেসব দেশে ভোগ্যপণ্যটির দর বৃদ্ধি পেয়েছে।

 

 

 

সূত্র:চ্যানেল ২৪ অনলাইন

Print Friendly and PDF