চট্টগ্রাম, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪ , ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হাওরাঞ্চলে বোরো ধান কাটা শুরু

প্রকাশ: ১৬ এপ্রিল, ২০২৩ ১:৫৫ : অপরাহ্ণ

দেশের  হাওরাঞ্চলে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে, তবে স্বস্তিতে নেই সব অঞ্চলের কৃষক। সুনামগঞ্জে ফলন ভালো হওয়ায় খুশি সেখানকার চাষীরা। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় শেষ পর্যন্ত কৃষকরা বেশ লাভবান হবে বলে মনে করে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। কিন্তু দুশ্চিন্তায় নেত্রকোনার হাওরাঞ্চলের চাষীরা। শিলাবৃষ্টি ও পোকার কারণে ব্রি-২৮ জাতের ধানের ফলন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই খোরাকী এবং ঋণ পরিশোধ নিয়ে রয়েছেন দুশ্চিন্তায়।

 

 

এবারে বোরো ধানের ভালো ফলন হওয়ায় খুশি সুনামগঞ্জের হাওরপাড়ের কৃষক। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢল কম থাকায় হাওর থেকে সব ধান ঘরে তোলার ব্যাপারে আশাবাদী চাষীরা। যদিও শিলাবৃষ্টি ও পোকার কারণে ব্রি ২৮ জাতের কিছু ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে কৃষক আশাবাদী, শেষ পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রার চাইতে বেশি ফলন মিলবে।

 

 

ফলন নিয়ে আশাবাদী কৃষি কর্মকর্তারাও। সুনামগঞ্জে এবছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি বোরো ধানের চাষ হয়েছে বলে জানালেন, সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিমল চন্দ্র সোম।

তবে স্বস্তিতে নেই নেত্রকোণার হাওরাঞ্চলের কৃষক। অকাল বন্যার হাত থেকে সারা বছরের একমাত্র ফসল রক্ষায় এবং আগাম ফলনের আশায় তারা ব্রি-২৮ জাতের ধান চাষ করেছিলেন। কিন্তু বেশীরভাগ জমির ধান চিটা হয়েছে। শিলাবৃষ্টির কারণে জমিতে ঝড়ে পড়েছে অনেক ধান। ফলে লোকসানের মুখে পড়তে হয়েছে নেত্রকোনার হাওরাঞ্চলের কৃষককে।

 

 

নেত্রকোণা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ নুরুজ্জামান জানালেন, মওসুমের শুরুতেই ব্রি-২৮ জাতের ধানের চাষ না করার ব্যাপারে কৃষকদের বলা হয়েছে। উঠান বৈঠক ও মতবিনিময় সভায় এব্যাপারে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে কৃষকদের।

বোরো মওসুমে নেত্রকোনায় ধান আবাদ হয়েছে ১ লাখ ৮৪ হাজার ৬৯০ হেক্টর জমিতে।

 

 

সূত্র –বৈশাখী অনলাইন

Print Friendly and PDF