চট্টগ্রাম, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪ , ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লাল রঙের এই ‘জুস’ খেলেই বাড়বে স্ট্যামিনা, বহু ঘাতক রোগ পালাবে

প্রকাশ: ৭ এপ্রিল, ২০২৩ ৩:০৭ : অপরাহ্ণ

সবজি বলতে পটল, পেঁপে, উচ্ছে, আলুকেই বুঝি। এসব বাদেও এমন অনেক সবজি রয়েছে যা শরীরের জন্য উপকারী। এই তালিকায় বিটের নামও আসতে পারে। বিট একটি অত্যন্ত উপকারী এক সবজি। প্রতিদিন এক গ্লাস করে এ সবজির জুস করে খেলে মিলবে অনেক উপকার।

 

১. জুসে কমবে ব্লাড প্রেশার​

উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা এখন প্রতি ঘরে ঘরে। আর এর ফলেই বাড়ছে হার্টের রোগ, কিডনির অসুখ, চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতা। তাই ব্লাড প্রেশার কমাতে হবে। বিটের জুসে থাকে নাইট্রেট যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এই নাইট্রেট শরীরে প্রবেশ করে নাইট্রিক অক্সাইডে পরিণত হয়ে যায়।

 

​২. স্ট্যামিনা বাড়াতে​

বর্তমান দ্রুত গড়িয়ে চলা জীবনযাত্রায় শারীরিক সক্ষমতা হারিয়ে যাওয়া খুবই স্বাভাবিক। এমনকী অনেককে সারাদিন ক্লান্তি গ্রাস করে। তবে এ নিয়ে অতিরিক্ত চিন্তা না করে বাজার থেকে কিনে আনুন বিট। তারপর এর রস করে পান করুন। এর মাধ্যমেই স্ট্যামিনা বাড়বে। আপনি এক্সারসাইজ করতে পারবেন অনায়াসে। তাই যারা নিয়মিত জিমে যান বা ফ্রি হ্যান্ড এক্সারসাইজ করেন, তাদের বিট খেতেই হবে।

 

 

​৩. হার্টের রোগীদের পেশির জোর বাড়ে​

হার্ট ফেলিওর এক গুরুতর সমস্যা। এই রোগে হার্ট নিজের কর্মক্ষমতা অধিকাংশই হারিয়ে ফেলে। এমনকী কমে রোগীর গোটা দেহের পেশির জোর। তবে হার্ট ফেলিওর রোগীরা বিটের জুস খেলে উপকার পাবেন। এই জুসে থাকা নাইট্রেট পেশির ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে। তবে আপনারা অবশ্যই এই জুস পান করার আগে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। তারপরই এই জুস মুখে তুলুন। এছাড়া নিজের ওষুধ খাওয়ার কথা ভুলবেন না যেন।

 

 

​৪. ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে​

ওজন বেশি হলে বহু অসুখ শরীরকে জাপটে ধরে। ডায়াবিটিস, প্রেশার, কোলেস্টেরলসহ নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ পরিস্থিতিতে খেতে পারেন বিটের জুস। এই জুসে ক্যালোরির মাত্রা থাকে খুবই কম। তাই অনায়াসে ওজন নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এছাড়া এতে ফ্যাটের পরিমাণও প্রায় নেই। তাই সবরকমভাবেই সুস্থ থাকতে পারবেন।

 

 

​৫. ক্যানসার প্রতিরোধ করে​

ক্যানসারের নাম শুনলেই বুকটি ধক করে ওঠে। ক্যানসার প্রতিরোধে জোর দিতে বলেন বিশেষজ্ঞরা। সেক্ষেত্রে বিটে থাকে বিটালিনস। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যানসার প্রতিরোধ করতে পারে বলে বিভিন্ন গবেষণায় উঠে এসেছে। তাই শরীরকে সুস্থ রাখতে চাইলে নিয়মিত বিটের জুস খান।

 

সূত্র – চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF