চট্টগ্রাম, বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ , ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইয়াকুটস্ক শহরে তাপমাত্রা মাইনাস ফিফটি

প্রকাশ: ১৭ জানুয়ারি, ২০২৩ ২:২৫ : অপরাহ্ণ

বিশ্বের শীতলতম শহর বলা হয় পূর্ব সাইবেরিয়ার ইয়াকুটস্ককে, যা রাশিয়ার অধীন একটি অঞ্চল। বছরের বেশিরভাগ সময়েই সেখানে তাপমাত্রা থাকে হিমাঙ্কের নিচে। বিশ্বের শীতলতম এই শহরের তাপমাত্রা সম্প্রতি মাইনাস ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে (মাইনাস ৫৮ ডিগ্রি ফারেনহাইট) নেমেছে। এক প্রতিবেদনে এতথ্য জানিয়েছে বার্তামাধ্যম সিএনএন।

সম্প্রতি ইয়াকুটস্ক শহরে প্রবল ঠাণ্ডা পড়েছে। তাপমাত্রা পৌঁছেছে হিমাঙ্কের ৫০ ডিগ্রি নিচে। শেষ কবে এমন ঠান্ডা পড়েছে, মনে করতে পারছেন না বাসিন্দাদের অনেকেই। সুমেরুবৃত্তের চেয়ে সাইবেরিয়ার এই শহরের দূরত্ব খুব বেশি নয়। পৃথিবীর উত্তর প্রান্ত থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দূরে ইয়াকুৎস্ক। শহরের গড় তাপমাত্রা মাইনাস ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তবে পরিসংখ্যান বলছে, এখন পর্যন্ত ইয়াকুটস্ক শহরের তাপমাত্রার পারদ সবচেয়ে বেশি নেমে গিয়েছিল হিমাঙ্কের ৬৪ ডিগ্রি নিচে। এ বারেও সেই রকম পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে কি না, তা নিয়ে আশঙ্কায় বাসিন্দারা।

হিমাঙ্কের নিচে থাকা তাপমাত্রাতেই কীভাবে দিব্যি দিন কাটিয়ে দিতে হয়, শীত কীভাবে সহ্য করতে হয়, জানেন ইয়াকুৎস্কের মানুষ। শীতকালে সেখানে প্রায়ই পারদ নেমে যায় হিমাঙ্কের ৩০ থেকে ৪০ ডিগ্রি নিচে।

তবে এ বছরের শীতের তাপমাত্রা অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশ খানিকটা কম। প্রবল শীতে জমে গিয়েছে গোটা শহর। নানা কৌশল অবলম্বনের পরেও হাড়কাঁপানো ঠান্ডাকে কিছুতেই বাগে আনা যাচ্ছে না। তাপমাত্রা নিয়ে অবশ্য কোনও অভিযোগ, অনুযোগ বা হতাশা নেই ইয়াকুৎস্কের মানুষজনের। ঠান্ডায় তারা অভ্যস্ত।

২০২১ সালের জনগণনা অনুযায়ী, ইয়াকুৎস্ক শহরের লোকসংখ্যা প্রায় ৩ লাখ ৫৫ হাজার। বাসিন্দাদের অধিকাংশ খনি শিল্পের সঙ্গে যুক্ত।

ইয়াকুৎস্কের বাসিন্দা অ্যানাস্তেশিয়া বলেন, ‘‘এই ঠান্ডার সঙ্গে লড়াই করা সম্ভব নয়। হয় সামঞ্জস্যপূর্ণ পোশাক পরতে হবে, নয়তো ঠান্ডায় কষ্ট পেতে হবে। অন্তত দু’টি মোটা ওড়না দিয়ে মাথা ঢেকে রেখেছিলেন অ্যানাস্তেশিয়া। হাতে পরেছিলেন দুটি দস্তানা। সঙ্গে একাধিক টুপি ও সোয়েটারও ছিল তার পরনে।

ইয়াকুৎস্কের রাস্তাঘাটে হামেশাই বরফ জমে থাকে। তার ওপর দিয়েই চলাফেরা করেন সবাই। শহর ঠান্ডায় জমে গেলেও জীবনপ্রবাহ সচল।

বরফে ঢাকা রাস্তার ওপর বরফে জমে যাওয়া মাছ বিক্রি করতে বসেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। মাছ তাজা রাখতে রেফ্রিজারেটরের প্রয়োজন হয় না। শীতলতম শহরে দিব্যি চলে শীতের বিকিকিনি।

গুচ্ছ গুচ্ছ গরম পোশাক পরাই ইয়াকুৎস্ক শহরে জীবন অতিবাহিত করার প্রধান এবং একমাত্র চাবিকাঠি, জানান স্থানীয়রা। তারা সবাই পুরু আস্তরণযুক্ত গরম উলের তৈরি একাধিক পোশাক গায়ে চাপান। বরফের মধ্যে সেভাবেই কাটিয়ে দেন দিন।

Print Friendly and PDF