চট্টগ্রাম, বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ , ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মসজিদ কমিটির প্রতি যে প্রত্যাশা ১৫ লাখ টাকা সম্মানী পাওয়া ইমামের

প্রকাশ: ১১ জানুয়ারি, ২০২৩ ১১:২৪ : পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামের খুলশিতে ইমামের বিদায়ে বিরল সম্মাননা জানিয়েছেন মসজিদ কমিটি ও মুসল্লিরা। টানা ৩৫ বছর একই মসজিদে ইমামতির দায়িত্ব থেকে বিদায়বেলায় নগদ ১৫ লাখ টাকা এবং নানা উপহারসামগ্রী দিয়ে সম্মাননা দেয়া হয় তাকে।

ওই ইমামের নাম আলহাজ হাফেজ মাওলানা গোলাম কিবরিয়া (৬২)। নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরজব্বার থানার চরবাটা গ্রামের মৃত আলহাজ হাফেজ সোলায়মানের ছেলে তিনি।

পারিবারিক জীবনে তিন ছেলে ও তিন মেয়ের বাবা মাওলানা কিবরিয়া। তার তিন ছেলেই কুরআনের হাফেজ ও উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত। মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন। এক মেয়ে মাস্টার্স ও অন্য দুই মেয়ে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেছেন।

হাফেজ মাওলানা গোলাম কিবরিয়া বলেন, আজ আলেম সমাজ নানাভাবে নিগৃহীত, নির্যাতিত। সমাজের মানুষের মধ্যে সঠিক ধর্মজ্ঞান পৌঁছে দিতে তারা কাজ করে যাচ্ছে। আলেম, মোয়াজ্জেম, ইমামরা থাকার কথা সমাজের সর্বোচ্চ আসনে। কিন্তু নানা কারণে তারা ভালো নেই। এ জন্য প্রত্যেকটি মসজিদ, মক্তব, মাদরাসাকে আরও সচেতন হতে হবে। আলেম সমাজকে সম্মানিত করতে হবে। তাদের বেতন-ভাতাদি যাতে সম্মানজনক হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে।

তিনি আরও বেলেন, মসজিদ, মক্তব ও মাদরাসায় চাকরি করে যেন তারা তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে সুখে থাকতে পারে, নিজেদের সন্তানদের যেন ভালো লেখাপড়া করাতে পারে, সেদিকে নজর দিতে হবে সমাজপতিদের। তাহলে ইমাম-মোয়াজ্জেমদের বিরুদ্ধেও কোনো নেতিবাচক ঘটনার জন্ম হবে না। কারণ তারা যদি ভালোভাবে জীবনযাপন করতে পারে তাহলে কোনো প্রকার লেজুড় ভিত্তি কিংবা অপরাধের সঙ্গেও তারা যুক্ত হবে না।

তিনি প্রত্যাশা করেন ভবিষ্যতে সারাদেশের ইমাম-মোয়াজ্জেমরা তার চেয়ে আরও বেশি সম্মান নিয়ে অবসরে যাবেন। এটা বাস্তবায়ন হবে তখন যখন প্রত্যেকটি মসজিদ কমিটি সচেতন হবেন।

মাওলানা কিবরিয়া মাত্র ২৭ বছর বয়সে চট্টগ্রাম নগরীর খুলশী কলোনি এলাকায় এসে ইমামতি এবং এলাকার মক্তবে পড়ানো শুরু করেন। প্রায় তিন যুগ ধরে মসজিদে ইমামের কাজ করার পর ৬২ বছর বয়সে গত ১ জানুয়ারি অবসর নেন। তার অবসরকে অবিস্মরণীয় করে রাখতে বিদায়ী ইমামের হাতে তুলে দেয়া হয় নগদ ১৫ লাখ টাকা ও নানা উপহারসামগ্রী।

মসজিদ পরিচালনা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক সাব্বির হান্নান জানান, ‘উনি টানা ৩৫ বছর আমাদের মসজিদে ইমামতি করেছেন। একজন ইমামের কতই বা বেতন। বিদায়বেলায় আমাদের মনে হলো- ইমাম সাহেবকে যথাযথ সম্মান দেয়া উচিত। এ কারণেই মসজিদ কমিটি ও এলাকাবাসী সবাই মিলে ওই উদ্যোগ নিয়েছি।’

ইমামের বিদায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- খুলশি কলোনি বায়তুল জান্নাত জামে মসজিদের খতিব মাওলানা ড. আতাউর রহমান নদভী, খুলশী থানার অফিসার্স ইনচার্জ সন্তোষ কুমার চাকমা, মাওলানা হাফিজ আহমেদ, খুলশী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শহীদুর রহমান, খুলশী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. নুরুল আবছারসহ আরও অনেকেই।

 

সূত্র: চ্যানেল২৪

Print Friendly and PDF