চট্টগ্রাম, বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ , ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চাকরি না পেয়ে চায়ের দোকান দিলেন দুই ইঞ্জিনিয়ার বন্ধু

প্রকাশ: ৭ জানুয়ারি, ২০২৩ ১১:৫০ : পূর্বাহ্ণ

চাকরি না পাওয়ায় সবশেষ চায়ের দোকান খুললেন দুই ইঞ্জিনিয়ার বন্ধু রাহুল আলী ও আলমগীর খান। তারা দু’জনই বি. টেক পাস করে চাকরির জন্য চেষ্টা করেন। কিন্তু যোগ্যতা অনুযায়ী চাকরি পাননি। আবার বয়সও ক্রমশ বাড়তে থাকে। এ কারণে জীবিকা নির্বাহের জন্য দুই বন্ধুই চায়ের দোকান খুলেন। দোকানের নাম দেন ‘বি. টেক চাওয়ালা।’

এতদিন এমবিএ চায়েওয়ালা, এম. এ ইংলিশ চাওয়ালির কথা শুনেছেন সবাই। এবার সামনে এল দুই বন্ধুর ‘বি. টেক চাওয়ালা’। এই নামের সঙ্গেও চমক রয়েছে। সমাজের ব্যর্থতাকে চোখে আঙুল দিয়ে তুলে ধরার জন্য এমন নাম দিয়েছেন দোকানের।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কারিগরি দক্ষতা ভুলে দুই বন্ধু এখন চা দোকানেই ব্যস্ত। দোকানে বসে চা পানের সুবিধার মতো বাইরে দাঁড়িয়েও পানের ব্যবস্থাও রয়েছে। চা পান করতে করতেই আড্ডার সুযোগ রয়েছে সেখানে। ভেতরে রয়েছে সৃজনশীল সাজসজ্জা। যা নজর কাড়বে সবার।

আলমগীর জানিয়েছেন, পড়া শেষে সেভাবে চাকরির সুযোগ না পাওয়ায় চায়ের দোকান খোলার ভাবনা আসে। এমবিএ চায়েওয়ালা থেকেই তাদের অনুপ্রেরণা।

গত ১ জানুয়ারি নিজেদের ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন পেছনে রেখে বাস্তবতাকে মেনে নিয়ে চায়ের দোকান খুলেন তারা। আপাতত মালদহের ইংরেজ বাজার শহরের স্টেশন রোডে কানি মোড়ে একটি দোকান ভাড়া নিয়ে সেখানে চায়ের দোকান দিয়েছেন দুই বন্ধু।

‘বি. টেক চাওয়ালা’, দোকানের এই নাম নিয়ে তারা জানিয়েছেন, কলেজজীবনে প্রচুর সময় কাটিয়েছেন চায়ের দোকানে। এখন ভাগ্যের করুণ পরিণতিতে চায়ের দোকান দিতে হচ্ছে তাদের।

রাহুল ও আলমগীরের ভাষ্যমতে কোনো কাজই যে ছোট না তা বোঝাতেই দোকানের এই নাম দেয়া।

Print Friendly and PDF