চট্টগ্রাম, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২২ , ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রেমিকার বুকে ৩৭ বার ছুরি চালিয়ে হত্যা, কারাগারে সেই বক্সারের রহস্যময় মৃত্যু!

প্রকাশ: ৭ নভেম্বর, ২০২২ ৩:১৮ : অপরাহ্ণ

যাকে এক সময় ভালবেসেছিলেন, তার বুকেই ছুরির কোপ মারেন এক যুবক। শুধু এক বার নয়, ছুরি দিয়ে প্রেমিকার বুকে ৩৭ বার কোপ মেরেছিলেন ওই যুবক। যার জেরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছিলেন তরুণী। এই ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর কারাবন্দি করা হয়েছিল যুবককে। দেওয়া হয়েছিল কঠোর সাজাও। কিন্তু সেই সাজা ভোগ করার আগেই নিজেকে শেষ করে দিলেন যুবক। কারাগারের মধ্যে থেকে তার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হল।

সম্প্রতি এই ঘটনাটি ঘটেছে তুরস্কের আদানা এ টাইপ কারাগারে। কুঠুরিতে বেডশিট দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ওই যুবক আত্মহত্যা করেছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ২৭ বছর বয়সি ওই যুবক পেশাদার এক জন বক্সার। তার নাম সেলুম আহমেত কেমালোগলু।

তার করাবন্দি হওয়ার কারণ শিউরে ওঠার মতো। নিজের প্রেমিকাকে যে ভাবে নৃশংস ভাবে খুন করেছিলেন ওই যুবক, সেই ঘটনা হইচই ফেলে দিয়েছিল।

জানা গিয়েছে, জেইনেপ সেনিপার নামে এক ২৪ বছর বয়সি তরুণীর সঙ্গে ওই বক্সারের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু সম্পর্কে থাকাকালীন তাদের মধ্যে ঝামেলা লেগেই থাকত।

দক্ষিণ-পশ্চিম তুরস্কের মেন্টেস জেলায় বক্সারের বাড়িতে গিয়েছিলেন জেইনেপ। সে বার তাদের মধ্যে ঝগড়া বাধে। আর তারপরই রণমূর্তি ধারণ করেন ওই যুবক। যে মানুষটিকে কাছের মনে করছেন, সেই মানুষটিরও অন্য চেহারা দেখেন ওই তরুণী।

রান্নাঘর থেকে পাঁউরুটি কাটার ছুরি নিয়ে এসে প্রেমিকার বুকে একের পর এক কোপ মারেন যুবক। পুলিশ সূত্রে দাবি, ৩৭ বার ছুরির কোপ মারেন যুবক। ঘটনাস্থলেই জেইনেপের মৃত্যু হয়।

এই নৃশংস ঘটনাটি ঘটে ২০২০ সালের ২৪ মে। জানা যায়, প্রেমিকাকে কোপানোর পর নিজেকেও আঘাত করেন ওই যুবক। আহত অবস্থায় যুবককে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল।

তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, এই হত্যাকাণ্ডের এক মাস আগেই ওই যুগলের বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু তার পরও তারা একে অপরের সঙ্গে দেখা করতেন।

এমনকি হত্যাকাণ্ডের সপ্তাহ দুয়েক আগেই পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছিলেন জেইনেপ। সে সময় তিনি অভিযোগ করেছিলেন যে, তাকে মারধর করেছেন ওই যুবক।

হাসপাতালে চিকিৎসায় সেরে ওঠার পর প্রেমিকাকে খুনের অভিযোগে যুবককে অভিযুক্ত করা হয়।

এই ঘটনায় গত ২২ অক্টোবর সেলিম নামে ওই যুবককে ২৪ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়। তার কিছু দিনের মধ্যেই কারাগারের কুঠুরিতে তার দেহ উদ্ধার করা হল।

পুলিশ সূত্রে খবর, এই প্রথম নয়। এর আগেও একাধিক অপরাধের ঘটনায় নাম জড়িয়েছে ওই বক্সারের। ১৪ বার দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন তিনি।

সূত্র: ডেইলি স্টার ইউকেআনন্দবাজার

Print Friendly and PDF