চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর ২০২২ , ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভোলা থেকে জাহাজে করে গ্যাস আনার পরিকল্পনা

প্রকাশ: ২৪ অক্টোবর, ২০২২ ১১:৫২ : পূর্বাহ্ণ

দেশের গ্যাস সংকট নিরসনে আগামী দুই-তিন মাসের মধ্যে ভোলা গ্যাসক্ষেত্র থেকে প্রতিদিন ৮০ মিলিয়ন ঘনফুট (এমএমসিএফডি) গ্যাস– জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করার প্রস্তাব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী।

রোববার (২৩ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজ (বিসিআই) আয়োজিত ‘শিল্পখাতে জ্বালানি সংকটের প্রভাব প্রশমন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

ভোলা দ্বীপ থেকে জাতীয় গ্রিডে এই গ্যাস যুক্তের পরিকল্পনা প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের ঘাটতি পূরণে সামান্য অগ্রগতি করবে।

তৌফিক-ই-ইলাহী বলেন, ‘বিশ্ব পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে সেটা আমরা কেউ জানি না। তাই সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে। সংকটে যা করা প্রয়োজন সরকার তা-ই করছে, সাহস রাখেন। যদি প্রয়োজন হয়, আমরা এখানে যারা আছি, তারা সবাই শপথ নেব; দরকার হলে আমরা দিনের বেলায় বিদ্যুৎ ব্যবহার করবো না।’

উপদেষ্টা বলেন, ‘আগামী ডিসেম্বর-জানুয়ারি নাগাদ এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কয়লা থেকে পাওয়া যাবে। বর্তমান স্পট মার্কেটের দরে আগামী ছয় মাস যদি ২০০ এমএমসিএফ গ্যাস আমদানি করি, তাতে দীর্ঘমেয়াদি এলএনজির চেয়ে অতিরিক্ত খরচ হবে প্রায় ১ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। কিন্তু এই পরিমাণ ডলার বিনিয়োগের মতো অবস্থানে সরকার নেই।’

বিকল্প সমাধান হিসেবে তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেন, ‘ভোলা দ্বীপের অফ-গ্রিড ফিল্ডের গ্যাসকে কমপ্রেসড ন্যাচারাল গ্যাস (সিএনজি) আকারে গ্যাস বিশেষ বার্জে পরিবহন করা হবে। মূল ভূখণ্ডে আনার পর সিএনজি পুনঃগ্যাসীকরণ করে স্থানীয় উৎপাদন হ্রাস এবং সীমিত এলএনজি আমদানির ফলে ব্যাপক ঘাটতির মধ্যে থাকা জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হবে।’

তবে রাষ্ট্রায়ত্ত জ্বালানি সংস্থা পেট্রোবাংলার কর্মকর্তারা বলছেন, ‘এই মুহূর্তে এ ধরনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সুবিধা দেশে নেই। গ্যাস রূপান্তরের জন্য বিনিয়োগের প্রয়োজন হবে এবং ভোলা দ্বীপ থেকে মূল ভূখণ্ডে গ্যাস পরিবহনের জন্য এই ধরনের বিশেষায়িত বার্জের দরকার হবে।’

নাম না প্রকাশের শর্তে পেট্রোবাংলার এক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, ‘এই ধরনের প্রক্রিয়া রেডিমেড হলেও- তা বাস্তবায়নে কমপক্ষে সাত থেকে আট মাস সময় লাগে। কিন্তু, একেবারে নতুন করে গ্যাস কম্প্রেস করে জাহাজে পরিবহন করতে কমপক্ষে দেড় বছর সময় লাগবে।’

Print Friendly and PDF