চট্টগ্রাম, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২২ , ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাধা পেরিয়ে রূপপুরে এগিয়ে চলছে নির্মাণকাজ, আজ বসছে দ্বিতীয় চুল্লি

প্রকাশ: ১৯ অক্টোবর, ২০২২ ১০:২৯ : পূর্বাহ্ণ

আজ বুধবার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের দ্বিতীয় ইউনিটে বসছে, রিয়্যাক্টর প্রেসার ভেসেল বা চুল্লি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে এই কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রী জানান, রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের আঁচ, দমাতে পারেনি প্রকল্পের অগ্রগতি।

দেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এই প্রকল্পের প্রথম ইউনিটে চুল্লি স্থাপন করা হয় গত বছর। এবার দ্বিতীয় ইউনিটে বসবে চুল্লি। পরিচালক বলছেন, এর মাধ্যমে প্রকল্পের অগ্রগতি পৌঁছাবে ৫৫ শতাংশে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান বলেন, রিঅ্যাক্টর প্রেসার ভেসেলের স্থাপনের মধ্য দিয়ে আরএনপিপি’র দ্বিতীয় ইউনিটে বড় ধরনের পারমানবিক যন্ত্রপাতি স্থাপনের কাজ প্রায় সম্পন্ন হবে।

তিনি জানান, প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলেছে এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এই কাজ সম্পন্ন হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, দ্বিতীয় ইউনিটে অবকাঠামোতে রিঅ্যাক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপনের মধ্য দিয়ে সব ধরনের পারমানবিক যন্ত্রপাতি স্থাপন কাজ শেষ হবে। আরএনপিপি বাস্তবায়নের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দিচ্ছেন।

জানা গেছে, রুশ আনবিক শক্তি সংস্থা- রোসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ অনুষ্ঠানে সশরীরে উপস্থিত থাকবেন। রূপপুর প্রকল্পে বাংলাদেশি এবং রাশিয়ার কর্মকর্তারা এ জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি কাজ ইতোমধ্যেই সম্পন্ন করেছেন।

প্রকল্পের বিবরণ থেকে জানা যায়, রিঅ্যাক্টরগুলোর কার্যক্রম চালু করা হলে, রিঅ্যাক্টর প্রেসার ভ্যাসেল পারমানবিক জ্বালানি সংরক্ষণ করে, এবং সেই সঙ্গে তা থেকে তেজস্ক্রিয় দ্রব্য বেরিয়ে যাতে পরিবেশ দূষণ করতে না পারে, তার জন্য কতগুলো প্রতিবন্ধকতার একটির কাজও করে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বছরের ১০ অক্টোবর আরএনপিপি’র প্রথম ইউনিটে আরপিভি’র উদ্বোধন করেন। এটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে, বাংলাদেশ হবে পারমানবিক জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অধিকারী বিশ্বের ৩৩ তম দেশ।

প্রকল্প পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০২৩ সালে পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের প্রথম ইউনিট ১২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করবে। ২০২৪ সালে দ্বিতীয় ইউনিটও অনুরূপ বিদ্যুৎ সরবরাহ করবে।

বাংলাদেশ পারমানবিক শক্তি কমিশন রাশিয়ার কারিগরি ও আর্থিক সহায়তায় রূপপুর প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্প কাজ বাস্তবায়নে জনশক্তি প্রশিক্ষণসহ মোট ব্যয় হচ্ছে ১২.৬৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে ৯৯ শতাংশ অর্থায়ন করছে রাশিয়া। বর্তমানে প্রকল্পে ৩৩০০০ লোক কাজ করছে। এদের মধ্যে ৫৫০০ জন বিদেশি নাগরিক।

Print Friendly and PDF