চট্টগ্রাম, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২২ , ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইসরায়েলের সঙ্গে মিয়ানমারের গোপন সম্পর্ক ফাঁস, জানা যাচ্ছে নতুন তথ্য

প্রকাশ: ৮ অক্টোবর, ২০২২ ২:১২ : অপরাহ্ণ

মিয়ানমারের সঙ্গে কীভাবে ইসরায়েল গোপন সম্পর্ক তৈরি করে তার শ্রেণিবদ্ধ নথি প্রকাশ করেছে দেশটির জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম হারতেজ। পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের ওই গোপন নথিতে উঠে এসেছে রোহিঙ্গা মুসলিম নিধনে ইসরায়েল কীভাবে মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে সহযোগিতা করেছে।

বৃহস্পতিবার ২৫ হাজার পৃষ্ঠা সম্বলিত ওই নথি প্রকাশ করে হারতেজ। এতে উঠে এসেছে ১৯৫০ সাল থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে সহযোগিতার করার গোপন তথ্য।

হারতেজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৪৮ সালে ব্রিটিশদের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের পর মিয়ানমারে গৃহযুদ্ধ দেখা দেয়। আর একেই সুবর্ণ সুযোগ হিসেবে গ্রহণ করে ইসরায়েল। তারা তৎকালীন বার্মার (বর্তমানে মিয়ানমার) কাছে অস্ত্র বিক্রি বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

ওই গোপন নথির বরাত দিয়ে হারতেজ তার প্রতিবেদনে জানায়, অস্ত্র দিয়ে সহযোগিতার করার অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল আন্তর্জাতিক অঙ্গনে মিয়ানমার ইসরায়েলকে সমর্থন দিবে।

আর এ কাজে মিয়ানমারের সহযোগিতা পাওয়ার জন্য ইসরায়েল তাদের ৩০টি যুদ্ধ বিমান, হাজার হাজার রাউন্ড গুলি, ১৫০০ ন্যাপাল বোমা, ৩০ হাজার ব্যারেল রাইফেল, হাজার হাজার মর্টার সেল এবং আরও অনেক সামরিক সরঞ্জাম প্রদান করে।

এছাড়াও ইসরায়েলের অনেক অভিজ্ঞ সেনাবাহিনীর অফিসার মিয়ানমার গিয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করে এবং মিয়ানমার থেকেও অনেক আর্মি অফিসার ইসরায়েল ভ্রমণ করে তাদের কাছ থেকে নির্দেশনা গ্রহণ করে। আর এভাবে তারা নিজেদের মধ্যে সম্পর্কের উন্নয়ন করে। বার্মিজ সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় ইসরায়েল সেখানে শিপিং, কৃষি, পর্যটন এবং নির্মাণ কোম্পানিও প্রতিষ্ঠা করে।

সর্বশেষ ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট প্রায় ২৪ হাজার রোহিঙ্গা মুসলিমকে হত্যা করে। ১ লাখ ১৪ হাজার রোহিঙ্গাকে অমানসিক নির্যাতন করে। দেশটির সেনাবাহিনীর দ্বারা ধর্ষণের শিকার হন প্রায় ১৮ হাজার নারী ও শিশু। এছাড়া ১ লাখ ১৫ হাজার রোহিঙ্গাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া হয়। আন্তর্জাতিক সংস্থা ওআইডিএ এর প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

সূত্র: প্যালেসটাইন ক্রোনিকাল

Print Friendly and PDF