চট্টগ্রাম, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২ , ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুমিল্লায় মালদ্বীপের তরুণী

প্রকাশ: ২৮ জুলাই, ২০২২ ৩:১১ : অপরাহ্ণ

মালয়েশিয়ান তরুণীর পর এবার কুমিল্লায় এসেছেন হাব্বা আহমেদ নামে মালদ্বীপের এক তরুণী। মালে সিটিতে হাব্বা আহমেদের পরিবার এবং বর রাসেলের আত্মীয়-স্বজনদের উপস্থিতিতে বিয়ে হয় তাদের। বিয়ের পর নিজ দেশ মালদ্বীপ থেকে গত ২৪ জুলাই স্বামী রাসেলের সঙ্গে কুমিল্লার বরুড়ায় এসেছেন হাব্বা আহমেদ।

জেলার বরুড়া উপজেলায় মাত্র দু’সপ্তাহের ব্যবধানে বিদেশী দুই তরুণীর এমন ঘটনায় জেলাজুড়ে চলছে বেশ মুখরোচক আলোচনা।

জানা যায়, ২০১৪ সালে কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার পয়ালগাছা ইউনিয়নের গণ্ডামারা গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে মোহাম্মদ রাসেল কাজের সন্ধানে মালদ্বীপে পাড়ি জমান। সেখানে মালে সিটিতে কাজ করার সময় ২০১৯ সালে করোনা শুরুর দিকে হাব্বার সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এ পরিচয়ের সূত্র ধরে উভয়ের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর গত বছরের অক্টোবর মাসে মালদ্বীপেই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। হাব্বা আহমেদ মালদ্বীপের মালে সিটির আহমেদ দিদির মেয়ে। গত ২৪ জুলাই মালদ্বীপ থেকে সস্ত্রীক বরুড়ায় আসেন রাসেল।

রাসেল জানায়, মালে সিটিতে হাব্বা আহমেদের পরিবার এবং আমার আত্মীয়-স্বজনদের উপস্থিতিতে বিয়ে হয় আমাদের। আমরা এখন সুখে আছি। আমি সবার কাছে দোয়া কামনা করছি। স্থানীয় ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, রাসেল মালদ্বীপের একটি মেয়েকে ভালোবেসে বিয়ে করেছে। এখন তাকে নিয়ে দেশে এসেছে। এ ঘটনায় আমরাও আনন্দিত।

এদিকে গত ১১ জুলাই প্রেমের টানে মালয়েশিয়া থেকে বরুড়ায় ছুটে এসেছেন এক তরুণী। ওই তরুণীর সঙ্গে আসেন তার পরিবারের সদস্যরাও। এরপর উভয় পরিবারের সিদ্ধান্তে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। বর সাইফুল ইসলাম সুজন কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার শিলমুড়ি ইউনিয়নের দীঘলগাঁও গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে। মালয়েশিয়ার তরুণীর নাম নূর আজিমা বিনতে মোস্তফা। তিনি মালয়েশিয়ার পেনাং শহরের বাসিন্দা। গত ১২ জুলাই সন্ধ্যায় ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী বিয়ে হয় তাদের।

Print Friendly and PDF