চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২ , ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টাকার অভাবে বন্ধ হয়ে গেল ধনী মুসলিম দেশ কাতারের কুরআন টিভি

প্রকাশ: ২৬ জুলাই, ২০২২ ১২:১২ : অপরাহ্ণ

বিশ্বের অন্যতম ধনী দেশ কাতার। উপসাগরীয় এ মুসলিম দেশটিতে অর্থ-সম্পদের অভাব নেই। তবুও আর্থিক সহায়তার অভাবেই দেশটিতে পবিত্র কুরআন প্রচার করে এমন একটি টিভি চ্যানেল বন্ধ হয়ে গেল!

ইন্টারন্যাশনাল কুরআন নিউজ এজেন্সি (ইকনা) এক প্রতিবেদনে জানায়, টাকার অভাবে কাতারের ওই কুরআন টিভি চ্যানেলের পরিচালক সব অনুষ্ঠান প্রচার বন্ধ করে দিয়েছে।

আল-শারক নিউজ ওয়েবসাইটের বরাতে ইকনা জানায়, দোহাত আল-কুরান নামের টিভি চ্যানেলটির পরিচালক ইউসুফ আল-শাইবানি ‘আর্থিক সহায়তা শেষ হয়ে যাওয়ায় টাকার অভাবে টিভি নেটওয়ার্ক চালাতে সক্ষম না হওয়ায়’ এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তবে তিনি এও জানিয়েছেন, চ্যানেলটি চালু রাখার জন্য একটি আমেরিকান খ্রিস্টান দাতব্য প্রতিষ্ঠান সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছিল। তবে তা প্রত্যাখ্যান করে দেয়া হয়েছে।

শাইবানি উল্লেখ করেন, ২০২০ সালে দোহাত আল-কুরআন টিভি চ্যানেলটির উদ্বোধনের পরে একটি চ্যারিটি সোসাইটি থেকে আর্থিক সহায়তা পেয়ে আসছিল। কিন্তু এক বছর পরে সেই সহায়তা বন্ধ হয়ে যায়।

তবে তারপর অন্য একজন দাতা আরও ছয় মাসের জন্য স্যাটেলাইটের ভাড়া, চ্যানেলের সদর দপ্তরের ভাড়া এবং কর্মচারীদের বেতনসহ সমস্ত সম্প্রচারের খরচ প্রদান করেছিলেন।

তিনি যোগ করেন, তবে তারপর থেকে চ্যানেলের কর্মীরা বেতন না পেয়েও তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে, শুধুমাত্র সর্বশক্তিমান আল্লাহর কিতাব প্রচারের জন্য পুরস্কৃত হওয়ার আশায়।

পরিচালক শাইবানি জানান, এই সময়ের মধ্যে চ্যানেলটির সদর দপ্তরের ভাড়াও পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি এবং শেষ পর্যন্ত দোহাত আল-কুরআন টিভি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।

তার ভাষ্যমতে, স্যাটেলাইট ভাড়ার খরচই চ্যানেলটি বন্ধ হওয়ার প্রধান কারণ ছিল। কারণ চ্যানেলটির সম্পূর্ণ অপারেশনাল খরচের দেড় লাখ কাতারি রিয়ালের মধ্যে ৫০ হাজার রিয়ালই খরচ হতো স্যাটেলাইট ভাড়ায়।

শাইবানি চ্যানেলটি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, টিভি চ্যানেলটি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল। আরব বিশ্বের লাখ লাখ দর্শককে আকৃষ্ট করতে সক্ষম হয়েছিল এটি।

চ্যানেলটির উদ্বোধনীর সময় ২০২০ সালে আল-শারককে শাইবানি বলেছিলেন, অলাভজনক চ্যানেলটির বার্ষিক ব্যয় ১.৫ মিলিয়ন কাতারি রিয়াল। সেবার একজন দাতা পুরো বছরের খরচ সরবরাহ করেছিলেন।

তিনি আরও জানিয়েছিলেন, চ্যানেলটির পবিত্র কুরআন তেলওয়াত ছিল এক্সক্লুসিভ। ৯০ শতাংশ ক্বারিই ছিলেন নতুন এবং টিভির জন্য অল্প পরিচিত মুখ। চ্যানেলটি ২৪ ঘণ্টাই অনুষ্ঠান সম্প্রচার করত।

Print Friendly and PDF