চট্টগ্রাম, বুধবার, ৬ জুলাই ২০২২ , ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মসজিদে মসজিদে শিবলিঙ্গ খোঁজার কী প্রয়োজন, প্রশ্ন আরএসএস প্রধানের

প্রকাশ: ৩ জুন, ২০২২ ৩:৫৫ : অপরাহ্ণ

ভারতের হিন্দু জাতীয়তাবাদী সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) প্রধান মোহন ভাগবত উত্তর প্রদেশের বারানসিতে জ্ঞানবাপী মসজিদ বিতর্কে এই প্রথম মুখ খুললেন।

জনপ্রিয় ভারতীয় দৈনিক সিয়াসত ডেইলির প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রতিটি মসজিদে শিবলিঙ্গ খোঁজার কী প্রয়োজন- বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। মন্দির-মসজিদ বিতর্কে পারস্পরিক ঐকমত্যের ভিত্তিতে উপায় বের করার কথা বলেছেন আরএসএস প্রধান।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রাম মন্দিরের পরে কাশীর জ্ঞানবাপী মসজিদে পূজা পাঠ করা ও মথুরার শাহী ঈদগাহ সরানোর দাবিতে সরব ভারতের হিন্দুত্ববাদীদের একাংশ। বিষয়টি গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত।

এমন পরিস্থিতিতে নাগপুরে এক সভায় মোহন ভাগবত বলেন, ‘আমাদের কিছু জায়গা (ধর্মীয় স্থান) নিয়ে বিশেষ ভক্তি থাকতে পারে। কিন্তু তা বলে রোজ নতুন নতুন বিষয় কেন জাগিয়ে তোলা হবে?

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের আদৌ বিতর্ক বাড়ানো উচিত নয়। জ্ঞানবাপী নিয়ে আমাদের ভক্তি-শ্রদ্ধা থাকতেই পারে। কিন্তু তা বলে প্রত্যেক মসজিদেই কেন শিবলিঙ্গ খোঁজা হবে?’

এ সময় জ্ঞানবাপী প্রসঙ্গে সংঘপ্রধান আরও বলেন, ‘ইতিহাসকে পাল্টানো যায় না। আজকের কোনো হিন্দু বা মুসলিম এটা তৈরি করেননি। অতীতে হয়েছিল। বহিরাগত আক্রমণকারীদের মাধ্যমে ইসলাম এ দেশে এসেছিল। দেশের স্বাধীনতাকামীদের মনোবল নষ্ট করতে দেবস্থান ভাঙা হয়েছিল।’

এসব বিতর্কিত মন্তব্য করে সবাইকে আদালতের সিদ্ধান্ত মেনে চলারও আহ্বান জানান তিনি। ভাগবত বলেন, ‘ওরা হয়তো অন্য ধরনের উপাসনা করেন। কিন্তু মুসলিমরা আসলে আমাদেরই মুনি-ঋষি ও ক্ষত্রিয়দের বংশধর।’

জ্ঞানবাপীর পরে কুতুব মিনারে পূজা পাঠ, তাজমহলের প্রকৃত সত্য জানতে চেয়ে সরব হয়েছে আরেকটি অংশ। অনেকে বলছেন, এ নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে সমাজে অসহিষ্ণুতা সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

 

Print Friendly and PDF