চট্টগ্রাম, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ , ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মুসলিম নারীদের সাঁতারের পোশাক নিয়ে ফ্রান্সে উত্তপ্ত বিতর্ক

প্রকাশ: ১৯ মে, ২০২২ ১০:০৮ : পূর্বাহ্ণ

রক্ষণশীল মুসলিম নারীদের পছন্দের মাথা থেকে পা পর্যন্ত ঢেকে রাখা সাঁতারের পোশাক ‘বুরকিনি’ নিয়ে ফ্রান্সে আবারও উত্তপ্ত বিতর্ক শুরু হয়েছে। কদিন আগেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর গ্রেনোবল পাবলিক পুলে বুরকিনি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে। কিন্তু ফরাসি সরকার এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করবে বলে জানিয়েছে।

ভয়েস অব আমেরিকার খবরে বলা হয়েছে, এই পদক্ষেপটি ইসলামী পোশাক এবং দেশটির কট্টর ধর্মনিরপেক্ষ মূল্যবোধ সম্পর্কে দীর্ঘকাল ধরে চলমান উত্তেজনাকে পুনরুজ্জীবিত করেছে।

ফ্রেঞ্চ রেডিওতে দেয়া সাক্ষাতকারে গ্রীনস মেয়র এরিক পিওল বলেন, ‘এটি গুরুত্বপূর্ণ যে শহরের সব বাসিন্দারা যেন সুইমিংপুলসহ পাবলিক পরিষেবাগুলি ব্যবহার করতে পারে। এই রায়ে নারীদের বুরকিনি পরে এবং সঙ্গে সঙ্গে টপলেস পরে সাঁতার কাটারও অনুমতি দেয়া হয়েছে ।

তবে মেয়রের মতামত সর্বজনীনভাবে গৃহীত হয় না। গ্রেনোবল সিটি কাউন্সিলে ভিন্নমত পোষণকারীরা বলছেন, পিওলের এই নীতি পাস করার কোনো কর্তৃত্ব ছিল না। ওভেনিয়া খ্রোনাল্প এলাকার রক্ষণশীল আঞ্চলিক কাউন্সিলের প্রধান, গ্রেনোবলের ভর্তুকি স্থগিত করেছেন, বলেছেন যে বুরকিনি নারীদের জন্য আত্মসমর্পণ এবং রাজনৈতিক ইসলামের চিহ্ন।

ফরাসি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড ডারমানিন গ্রেনোবলে মুসলিম নারীদের সাঁতারের পোশাক নিয়ে এই সিদ্ধান্তকে আদালতে চ্যালেঞ্জ করবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি এটিকে একটি অগ্রহণযোগ্য উস্কানি বলে অভিহিত করেছেন।

ফ্রান্স পাবলিক স্কুলে এবং ম্যাচে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ফরাসি ফুটবল ফেডারেশনের নারী খেলোয়াড়দের জন্য মাথার স্কার্ফ নিষিদ্ধ করেছে। সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত স্থানে মুখ ঢাকা নেকাব নিষিদ্ধ।

রক্ষণশীল সি-নিউজ চ্যানেলের একটি সাম্প্রতিক জরিপে দেখা গেছে, বেশিরভাগ ফরাসি জনগণ সর্ব সাধারণের সাঁতার কাটার পুলে বুরকিনির বিরোধিতা করে, কিন্তু কিছু সাঁতারু এ বিষয়টি আমলে নেয় না।

প্যারিসে সর্ব সাধারণের জন্য একটি সাঁতার কাটার পাবলিক পুলে সাঁতারু মারি বলেছেন, প্রত্যেকেরই স্বাধীনতা থাকা উচিত যে তারা কি পরতে চায়। যতক্ষণ এটি আমার উপর চাপিয়ে না দেয়া হয়, এটি কোনো সমস্যা নয়।

Print Friendly and PDF