চট্টগ্রাম, বুধবার, ৬ জুলাই ২০২২ , ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তাজমহল নাকি শিব মন্দির : জানা গেল সেই বদ্ধ ২২টি ঘরে কী আছে

প্রকাশ: ১৮ মে, ২০২২ ১০:৩৪ : পূর্বাহ্ণ

সম্প্রতি তাজমহলের নীচে ২২টি ঘর খুলে দেখানোর আবেদন জানিয়েছিলেন এক বিজেপি নেতা। সোমবার কয়েকটি ঘরের ছবি প্রকাশ করল এএসআই।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের বরাতে ডয়চে ভেলের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সোমবার ভারতীয় পুরাতত্ত্ব বিভাগ (এএসআই) তাজমহলের নীচের ২২টি ঘরের কয়েকটির ছবি প্রকাশ করেছে।

তারা জানিয়েছে, ঘরগুলোর সংস্কারকাজ চলছে। চারটি ছবিতে তারা সংস্কারের আগের এবং পরে ঘরগুলোর অবস্থা দেখিয়েছে।

একইসঙ্গে জানানো হয়েছে, ওই ঘরগুলোর কোনো বিশেষত্ব নেই। একাধিক মুঘল স্থাপত্যে ওই ধরনের ঘর আছে। সংস্কারের কাজ হচ্ছে বলেই ঘরগুলো বন্ধ করে রাখা আছে বলে তাদের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

এর আগে গত সপ্তাহে বিজেপির অযোধ্যা ইউনিটের মিডিয়া ইনচার্জ রজনীশ সিংহ এলাহাবাদ হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চে তাজমহলের ২২ বদ্ধ ঘর খুলে দেখানোর দাবি তোলেন। তার দাবি, তাজমহলের জায়গায় আগে একটি শিব মন্দির ছিল। যা তেজো মহালয়া নামে পরিচিত।

লখনউ বেঞ্চ অবশ্য রজনীশের পিটিশন খারিজ করে দিয়েছে। কিন্তু সমাজমাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে তীব্র বিতর্ক শুরু হয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে, কেন তাজমহলের নীচের ২২টি ঘর বন্ধ করে রাখা আছে। কী তার রহস্য।

সোমবার এএসআই-য়ের পদক্ষেপ সেই বিতর্কে খানিকটা ইতি টানবে বলে মনে করা হচ্ছে। এএসআই ওই ঘরগুলোর ছবি প্রকাশ করে জানিয়ে দিয়েছে, সেখানে কোনো রহস্য নেই।

কী আছে ওই ২২টি ঘরে : ১৯৭৮ সালের বন্যায় প্রবল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল ওই ঘরগুলো। তারপরেই একে একে সাধারণ দর্শকদের জন্য ঘরগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়।

আগে যারা ওই ঘর দেখেছেন, তাদের বক্তব্য, ঘরগুলো মূলত সামার রুম হিসেবে তৈরি করা হয়েছিল। একাধিক মুঘল স্থাপত্যে এমন ঘর আছে। ওই ঘরে সম্রাট এবং তার সহচররা থাকতেন, সময় কাটাতেন।

একসময় আগ্রা দুর্গ থেকে নদীপথে শাহজাহান তাজমহলে আসতেন। তাজমহলের ঘাট থেকে সরাসরি ওই ঘরগুলোতে পৌঁছানো যেত বলে দাবি করেছেন ইতিহাসবিদরা।

সোমবার এএসআই কয়েকটি ঘরের দুইটি করে ছবি প্রকাশ করেছে। সংস্কারের আগে এবং পরে ঘরগুলোর চেহারা সেখানে দেখা যাচ্ছে। বন্যা এবং অন্য নানাবিধ কারণে ঘরগুলো কীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল তা স্পষ্ট ওই ছবিগুলোতে।

Print Friendly and PDF