চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪ , ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তিস্তা সেতু রক্ষা বাঁধে ধস, ঝুঁকিতে ১৫০০ পরিবার

প্রকাশ: ২৭ জুন, ২০২৪ ৯:৫৮ : পূর্বাহ্ণ

 

রংপুরের গঙ্গাচড়ায় তিস্তা নদীর ওপর নির্মিত গঙ্গাচড়া মহিপুর শেখ হাসিনা সেতুর পশ্চিম পাশের সেতু রক্ষা বাঁধ ধসে গেছে। ৯০০ মিটার বাঁধের প্রায় ৪০ মিটার জায়গার ব্লক ধসে স্থানটিতে প্রায় ৫০ ফুট গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে লালমনিরহাট-রংপুর অঞ্চলের যোগাযোগ সড়কসহ বাঁধের ধারে বসবাস করা তিন গ্রামের প্রায় ১৫০০ পরিবার। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকালে সরেজমিনে এ দৃশ্য দেখা যায়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সেতু রক্ষা বাঁধটি গত বারের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বাঁধ রক্ষণাবেক্ষণ কর্তৃপক্ষ। তাই এবারে নদীতে পানি আসা মাত্রই সেতু রক্ষা বাঁধের প্রায় ৪০ মিটার জায়গার ব্লক ধসে স্থানটিতে প্রায় ৫০ ফুট গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে তিন গ্রামের ১ হাজার ৫০০ পরিবারসহ ক্ষতি হতে পারে সেতুটিও।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রংপুরের সঙ্গে লালমনিরহাটের যোগাযোগ সহজ করতে ২০১৮ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) ১২১ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করে গঙ্গাচড়া মহিপুর শেখ হাসিনা সেতুটি। যা তিস্তার ওপর দ্বিতীয় সেতু।

তিস্তা তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দারা বলছেন, গত বছর যখন বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল আমরা এখানকার স্থানীয় প্রতিনিধিদের বিষয়টি জানিয়েছিলাম। কিন্তু তারা কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এবার যেভাবে পানি এসে বাঁধাটিতে সরাসরি আঘাত হানছে তাতে উজানে আর একটু বৃষ্টি হলে এই বাঁধ ভেঙে যাবে।

 

 

তিস্তা পাড়ের বাসিন্দা আব্দুর রহিম বলেন, বাঁধ ভেঙে গেলে পানি এসে সরাসরি আঘাত হানবে লালমনিরহাট-রংপুর সড়কে। এতে সড়কটি ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা শতভাগ। আর যদি সড়কটি ভেঙে যায় তাহলে লালমনিরহাটের প্রায় ৩০ লাখ মানুষের সঙ্গে রংপুর শহরের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হবে এবং বাঁধের পাশে থাকা শংকরদাহসহ তিনটি গ্রামের প্রায় ১ হাজার ৫০০ পরিবার ভাঙন হুমকিতে পড়বে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সেতু ও সড়কটি রক্ষার জন্য দ্রুত বাঁধ সংস্কারের কাজ করতে হবে।

এ সময় মহিপুর এলাকার আরও এক বাসিন্দা বলেন, আমরা বাঁধ ধসে যাওয়ার বিষয়ে গত বছরই বলেছিলাম, কর্তৃপক্ষ আমাদের কথা গায়ে লাগায়নি। আজকে রংপুর থেকে ইঞ্জিনিয়ার এসে দেখে জানালেন, তাদের নাকি আরও কেউ দেখতে আসবে, তারপর ব্যবস্থা নেবে। ততদিনে এখানকার লোকজন-রাস্তাঘাট ক্ষতি হয়ে যাবে।

গঙ্গাচড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদ তামান্না বলেন, মহিপুরে শেখ হাসিনা সেতুটির পশ্চিম অংশের বাঁধটি পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভাঙনও নতুন করে শুরু হয়েছে। আমরা ভাঙনের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। আশা করছি তারা দ্রুত ধসে যাওয়া রোধে কাজ শুরু করবে।

এ বিষয় রংপুর বিভাগের এলজিইডির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী লুৎফর রহমান বলেন, আমি এখানকার সেতু রক্ষা বাঁধ ধসে যাওয়ার বিষয়টি গঙ্গাচড়া উপজেলা প্রকৌশলীকে বলেছি রংপুর নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর লিখিতভাবে জানাতে, তারপর সেটা ঢাকায় পাঠাবে। সেখান থেকে এক্সপার্টরা এসে ডিজাইন করে কাজ করবে।

 

 

প্রসঙ্গত, গঙ্গাচড়া শেখ হাসিনা সেতু রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া উপজেলায় লালমনিরহাট-রংপুর আঞ্চলিক সড়কে তিস্তা নদীর ওপর অবস্থিত একটি সেতু। এটি মহিপুর সেতু নামেও পরিচিত। ২০১৮ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সেতুর উদ্বোধন করেন। পরে এটির নামকরণ করা হয় শেখ হাসিনা সেতু। সেতুটি লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা ইউনিয়নের রুদ্রেশ্বর এলাকার সঙ্গে রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার লক্ষীটারি ইউনিয়নের মহিপুর এলাকাকে সড়কপথে যুক্ত করেছে।

১২৩ কোটি ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৮৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ও ফুটপাতসহ ৯ দশমিক ৬ মিটার প্রস্থের সেতুতে রয়েছে ১৬টি পিলার, ১৭টি স্প্যান, ৮৫টি গার্ডার রয়েছে।

 

Print Friendly and PDF