চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪ , ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কফি পানের উপযুক্ত সময় নিয়ে যা বলছেন বিশেষজ্ঞরা

প্রকাশ: ১৩ জুন, ২০২৪ ১১:৫৯ : পূর্বাহ্ণ

 

সকালে ঘুম থেকে উঠেই অনেকে এক মগ কফি দিয়ে দিনের শুরু করেন। আবার কেউ কাজের ফাঁকে কয়েক দফা কফি পান করেন। এমনকি বিকেল কিংবা সন্ধ্যাতেও কফি পান করেন অনেকে। তবে খাবার খাওয়ার সময় আছে। বিশেষজ্ঞদের মতে কফি পানের জন্য উপযুক্ত সময় আছে। মার্কিন স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েব সাইট হেলথলাইনের প্রতিবেদনে কফি পানের সময় নিয়ে কথা বলেছে বিশেষজ্ঞরা।

কফি আমাদের শরীর চাঙা করে। সন্ধ্যার পর আমরা সাধারণত তেমন কোনো কায়িক শ্রম বা ভারী কাজ করি না। তাই কফি পানের ফলে তৈরি হওয়া বাড়তি শক্তি ব্যয় হয় না। আর বাড়তি এই শক্তি যদি কোনো কাজে ব্যয় না করা হয়, তবে শরীরে তৈরি হয় অস্থিরতা। রাতে ঘুম আসতে দেরি হয়। তাই সূর্য ডোবার পর কফির কাপে চুমুক দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।

আমাদের দেহের অ্যাড্রেনাল গ্রন্থি থেকে কর্টিসল নামের এক হরমোন নিঃসরণ হয়। কর্টিসল কিছু শারীরবৃত্তীয় কাজ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। যেমন বিপাক, রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা, মানসিক চাপ ইত্যাদি। মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করে বলে এই হরমোনকে ‘স্ট্রেস হরমোন’ও বলে। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর কর্টিসল প্রাকৃতিকভাবে আপনাকে চাঙা রাখে। তাই সকালে কফির কাপে চুমুক দিলে তেমন কোনো উপকার পাওয়া যায় না।

 

দুপুরে মধ্যাহ্নভোজের পর শরীরে অলসতা লাগে। এ সময় একটু কোল্ড কফি খেলে শরীরের ক্লান্তি দূর হয়। দুপুরের পর আধা কাপ কফি বাড়তি শক্তি যোগাবে। তবে যদি পূর্ণ এক কাপ বা তারও বেশি কফি খান এ সময়, তাহলে আবার রাতের ঘুমে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। তাই আধা কাপ কফি পানের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

সারাদিনের কাজ শেষে সন্ধ্যায় অনেকে এক মগ কফি নিয়ে বসেন। এই অভ্যাস থাকলে পরিবর্তন করুন। বিকেলে কিংবা সন্ধ্যায় কফি পান করলে রাতে সহজে ঘুম আসবে না। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে পরদিন, কর্মক্ষেত্রে আপনার কাজে।

আপনাকে যদি রাতের শিফটে কাজ করতে হলে রাত ৯টার পর কফি খেতে পারেন। অনেকে রাতের শিফটে কাজ করেন বা ভিন্ন দেশের সময়ের সঙ্গে মিলিয়ে অনলাইনভিত্তিক কাজ করেন। ফলে রাত জেগে কাজ করতে হয়। সে ক্ষেত্রে আপনি সন্ধ্যায় বা রাতে কাজে বসার আগে এক কাপ কফি খেতে পারেন। এতে আপনি সারা রাত জেগে থাকার ‘এনার্জি’ পাবেন।

 

Print Friendly and PDF