চট্টগ্রাম, সোমবার, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ , ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে: নৌপ্রতিমন্ত্রী

প্রকাশ: ২২ জানুয়ারি, ২০২৩ ৫:৪৬ : অপরাহ্ণ

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী নৌপরিবহন খাতে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরে বলেছেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে। এরই অংশীদার হিসেবে শিপিং সেক্টরও জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছে।

রোববার (২২ জানুয়ারি) চট্টগ্রামে ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউিট (এনএমআই) চট্টগ্রামের ২৪তম এবং এনএমআই, মাদারীপুরের ১৩তম ব্যাচের প্রশিক্ষণার্থী রেটিংসদের পাসিং আউট অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ডিজিটালাইজেশনের কারণে বিশ্বনৌবহর দ্রুতগতিতে উন্নত হচ্ছে। সেইসঙ্গে তাল মিলিয়ে জাহাজি অফিসার ও রেটিংদেরকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, দিন বদলের পালায় বর্তমান সরকারের ভিশন-২০৪১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে দেশের সব সেক্টর একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ নিম্নমধ্য আয়ের দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে এবং উন্নয়নশীল দেশ থেকে উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার পথে এগিয়ে চলছে।

তিনি আরো উল্লেখ করেন, ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউট, চট্টগ্রামের নিয়ন্ত্রণে মাদারীপুর শাখার স্থাপনাদির নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। শিগগিরই উদ্বোধন করে মাদারীপুর ক্যাম্পাসে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হবে। সেখানে ৩০০ জন করে ২টি ব্যাচে প্রতি বছর ৬০০ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা সম্ভব হবে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় কুড়িগ্রামে ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউট, কুড়িগ্রাম শাখা স্থাপনের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউটটি, চট্টগ্রামকে মেরিটাইম কর্মকাণ্ডের কেন্দ্র হিসেবে পরিণত করার সরকারি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সরকার ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউটে ‘শেখ রাসেল সিমুলেটর ভবন’ নির্মাণ করেছে। যার মধ্যে ফুল মিশন ব্রিজ সিমুলেটর, ফুল মিশন ইঞ্জিন সিমুলেটর এবং হাই ভোল্টেজ সিমুলেটরসহ অন্যান্য আধুনিক প্রশিক্ষণ যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশের শিপিং সেক্টরের সংশ্লিষ্ট অফিসার ও রেটিংদের উন্নতমানের প্রশিক্ষণ প্রদানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এ ধরনের প্রশিক্ষণের জন্য বাংলাদেশি অফিসার ও রেটিংদেরকে (নাবিক) আর বিদেশে যাওয়ার প্রয়োজন হবে না।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন- নৌপরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমডোর মো. নিজামুল হক, ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ ক্যাপ্টেন আতাউর রহমান।

অনুষ্ঠানে দুজন রেটিংকে গোল্ড মেডেল ও সিলভার মেডেল পদক প্রদান করা হয়। বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের সৌজন্যে প্রদত্ত গোল্ড মেডেল প্রাপ্ত হন অল রাউন্ড রেটিং মো. আতিকুর রহমান টুটুল এবং মেসার্স হক অ্যান্ড সন্স লিমিটেডের সৌজন্যে প্রদত্ত বেস্ট গ্রাউন্ড  ড্রিল সিলভার মেডেল প্রাপ্ত হন প্যারেড কমান্ডার মো. ইসমাইল হোসেন। দুজনই চট্টগ্রাম এনএমআই এর। ঐ প্রশিক্ষণ কোর্সে ২৯৭ জন প্রশিক্ষণার্থী অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে ৬৮ জন মাদারীপুর এনএমআই এর।

প্রতিমন্ত্রী পাসিং আউট রেটিংদের মার্চ পাস্ট পরিদর্শন করেন। তিনি শ্রেষ্ঠ প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

প্রতিমন্ত্রী পরে ইনস্টিটিউটের নবনির্মিত মসজিদ ও ‘শেখ রাসেল সিমুলেটর ভবন’ উদ্বোধন করেন।

Print Friendly and PDF