চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২ , ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রানি এলিজাবেথের পর কার মাথায় উঠছে কোহিনুর?

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১১:৪৮ : পূর্বাহ্ণ

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ গত বৃহস্পতিার (৮ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ১২টার দিকে মারা গেছেন। ব্রিটিশ রাজ পরিবারের নিয়ম অনুযায়ী, তার মৃত্যুর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে উত্তরাধিকারীকে রাজসিংহাসনে বসতে হবে। সেই প্রথা মেনে শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) ব্রিটেনের পরবর্তী শাসক হিসেবে শপথ গ্রহণ করবেন প্রিন্স চার্লস।

এর আগে প্রশ্ন উঠেছে, বিখ্যাত হীরা কোহিনুর কার মাথায় উঠছে? ইতোমধ্যে এর জবাব মিলেছে। ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলের বরাত দিয়ে ডয়চে ভেলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এখন এটি প্রিন্স চার্লসের স্ত্রী ক্যামিলার মুকুটে শোভা পাবে।

বিশ্ববিখ্যাত কোহিনুর বর্তমানে টাওয়ার অব লন্ডনের সংগ্রহশালায় রয়েছে। সেখানে আরও অসংখ্য হীরা আছে। দর্শনার্থীরা সেগুলো দর্শন করেন। তবে ইতিহাস ও সৌন্দর্য মিলিয়ে কোহিনুরের আবেদন আলাদা।

সদ্যপ্রয়াত রানি এলিজাবেথের বাবা ষষ্ঠ জর্জের অভিষেকের সময় প্ল্যাটিনামের রাজমুকুট তৈরি করা হয়। পরে তাতে কোহিনুর বসানো হয়৷ দ্বিতীয় এলিজাবেথের মা প্রথম এলিজাবেথ সেই মুকুট পরেন। এবার চার্লসের স্ত্রী ক্যামিলার মাথায় তা উঠবে। রাজা হিসেবে স্বামীর অভিষেকের সময় সেই মুকুট পরবেন তিনি।

এ মুহূর্তে কোহিনুরের ওজন ১০৫ দশমিক ৬ ক্যারেট। ইতিহাসের বাঁকবদলে বহুবার তা হাতবদল হয়। ভারতের পাঞ্জাব অধিকার করার পর সেটি পায় ব্রিটিশরা। সেই থেকে তাদের কাছেই আছে এ অমূল্য হীরা।

সেই কোহিনুর ফিরে পেতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ভারত। এজন্য কিছুদিন আগে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন তৃণমূল সংসদ সদস্য সুখেন্দু শেখর রায়।

তিনি দাবি করেন, বেআইনিভাবে এ হীরা দখল করে ব্রিটিশরা। তাই এখন তা ফেরত দেয়া উচিত। সুপ্রিম কোর্টকে এ ব্যাপারে সরকারকে নির্দেশ দেয়ার আর্জি জানান সুখেন্দু। তবে সর্বোচ্চ আদালত তা নাকচ করে  দেন। এরই মধ্যে কোহিনুর দাবি করে পাকিস্তানও।

Print Friendly and PDF