চট্টগ্রাম, সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১ , ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কক্সবাজার সমুদ্রের পানিতে নামতে পর্যটকদের মানতে হবে যে ১০ নির্দেশনা

প্রকাশ: ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ৪:১৬ : অপরাহ্ণ

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত কক্সবাজারে প্রতি বছরই সমুদ্রস্নানে নেমে পর্যটকের প্রাণহানি ঘটনা ঘটছে। বিধিনিষেধ না মেনে সাগরে নামার কারণে সৈকতকেন্দ্রিক প্রাণহানি কোনোভাবেই ঠেকানো যাচ্ছে না। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা লোকজনও জানে না সৈকতে লাগানো লাল এবং লাল-হলুদ পতাকার সংকেত সম্পর্কে।

এ নিয়ে সময় সংবাদে গত ১৩ সেপ্টেম্বর ‘৫ বছরে কক্সবাজার সৈকতে ১৯ পর্যটকের মৃত্যু’ শিরোনামে প্রতিবেদন হয়। এই প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে টনক নড়েছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের।

তাই ‘সতর্কতাই নিরাপত্তার পূর্বশর্ত’ এই স্লোগানে সমুদ্রের পানিতে নামার আগে করণীয় ও সতর্কতার ব্যাপারে ১০ দিনব্যাপী ক্যাম্পেইন শুরু করেছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন।

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে এই ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ।

এ সময় জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘সমুদ্রের পানিতে নামার আগে কিছু সতর্কবার্তা এই ১০ দিন আমরা প্রচার করতে চাই। পর্যটক যারা আসবেন তাদের তো জানা নেই যে এখানে লাইফগার্ড আছে। এখানে সিকিউরিটির ব্যবস্থা আছে। কোন চিহ্ন দিয়ে কি অর্থ প্রকাশ পায়, লাল পতাকার অর্থ কী ইত্যাদি। আত্মীয়স্বজন, পরিবার-পরিজন নিয়ে যারা কক্সবাজার সৈকতে বেড়াতে আসেন তারা অনেক সময় সিগনালগুলো খেয়াল করতে পারে না। তাদের অবগতির জন্য এই আয়োজন করা হয়েছে। তাদের সহায়তার জন্য এখানকার বিচকর্মীরা সার্বক্ষণিক সজাগ রয়েছেন।’

জেলা প্রশাসক আরও বলে, আজ থেকে শুরু করে আগামী ১০ দিন পর্যন্ত কলাতলী, সুগন্ধা এবং লাবণী বিশেষ করে এই তিনটা পয়েন্টে এ রকম প্রচারাভিযান চালানো হবে। এখন থেকে পর্যটকরা সমুদ্রস্নান কিংবা পানিতে নামার আগে প্রশাসনের দেওয়া নির্দেশনা ও সময়সূচি মেনে সমুদ্রসৈকতে নামবেন। এ সময় তিনি পর্যটকদের সহযোগিতার আহ্বান জানান।

এদিকে দেখা যায়, সমুদ্রসৈকতে গোসল করতে নামার আগে পর্যটকদের উদ্দেশে ১০ নির্দেশনা দিয়েছে জেলা প্রশাসন। এ ছাড়া গুপ্ত গর্ত (চোরাইখাল) ও গণস্রোতপ্রবণ এলাকা চিহ্নিত করে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সমুদ্রে নামার আগে যে ১০ সতর্কতা মানতে হবে তা হল: সাঁতার না জানলে সমুদ্রের পানিতে নামার সময় লাইফ জ্যাকেট ব্যবহার করতে হবে, লাল পতাকা চিহ্নিত করা পয়েন্টে কোনোভাবে নামা যাবে না, সৈকত এলাকায় সর্বদা লাইফগার্ডের নির্দেশনা মানতে হবে, বিকেল ৫টার পর সমুদ্রে নামা যাবে না, সমুদ্রে নামার আগে জোয়ার-ভাটাসহ আবহাওয়ার বর্তমান অবস্থা জেনে নিতে হবে, লাইফগার্ড নির্দেশিত নির্ধারিত স্থান অন্য কোনো পয়েন্ট থেকে সমুদ্রে নামা যাবে না, সমুদ্রে যেকোনো মুহূর্তে তীব্র স্রোত এবং গুপ্ত গর্ত সৃষ্টি হতে পারে, যে কোনো ভাসমান বস্তু পানিতে নামার আগে বাতাসের গতি সম্পর্কে জেনে নিন, শিশুকে সৈকতে সব সময় সঙ্গে রাখুন, তাকে একা সমুদ্রে নামতে দেবেন না এবং অসুস্থ অথবা দুর্বল শরীর নিয়ে সমুদ্রে হাঁটুপানির বেশি নামবেন না।

১০ দিনব্যাপী এ ক্যাম্পেইনের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাহিদ ইকবাল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (মানবসম্পদ) নাসিম আহমেদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) বিভীষণ কান্তি দাশ, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (পর্যটন সেল) মুরাদ ইসলাম, সি সেইফ লাইফ গার্ড সংস্থার প্রকল্প কর্মকর্তা ইমতিয়াজ আহমেদসহ ট্যুর অপারেটর, ফায়ার সার্ভিস, সিপিপি ও বিভিন্ন সংগঠনের কর্মকর্তারা।

 

Print Friendly and PDF