চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২ , ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘কানামাছি’ গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী শিশুতোষ লোকজ খেলা

প্রকাশ: ১৩ জুলাই, ২০২১ ১০:৫৭ : পূর্বাহ্ণ

কানামাছি গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী শিশুতোষ লোকজ খেলা। এই খেলা কালের বিবর্তনে হারিয়ে গেলেও এখনো চোখে পড়ে কোথাও কোথাও।

আগে লাগামহীন শৈশবের স্বাধীনতায় ছিল না কোনো গণ্ডি। দুরন্তপনার ক্ষেত্র ছিল অবারিত। সেই সময়ের শৈশব আর এ সময়ের শৈশবের ঢের পার্থক্য।

যান্ত্রিকতা এবং আধুনিকতা আমাদের জীবন থেকে অনেক কিছুই মুছে দিচ্ছে। আধুনিক যুগে শিশুদের শৈশব যেন খাঁচায় থাকা ছটফটে চড়ুই পাখির মতো। প্রাণ আছে কিন্তু সেই প্রাণে আনন্দের লেশ নেই।

নতুন প্রজন্মের অনেকে জানেই না তারা কি হারাচ্ছে আর তারা কি পাচ্ছে! যে সময়টা তারা কাটাবে খেলার মাঠে সেই সময়টাতে তারা হয় হাতে মোবাইল বা ভিডিও গেমস নিয়ে থাকছে।

“কানামাছি ভোঁ ভোঁ, যাকে পাবি তাকে ছোঁ”- বিকেল বেলায় এই ছড়া মাতিয়ে রাখতো খেলার মাঠ, বাড়ির উঠোন কিংবা বাড়ির পিছনের বাগান। কানামাছি খেলাটি বাংলাদেশের প্রায় সব অঞ্চলেই জনপ্রিয় একটি শিশুতোষ লোকজ খেলা।

‘কানামাছি ভোঁ ভোঁ, যারে পাবি তারে ছো’-এই লাইনটি জানে না এমন কোনো বাঙালি শিশু হয়ত খুঁজে পাওয়া যাবে না। কানামাছি খেলায় সুরে সুরে এই কথাগুলো বলতে শোনা যায় প্রত্যেককেই।

শৈশবের এই মজার খেলাটিও এখন হারানোর লিস্টে জমা হচ্ছে। কানামাছি যখন খেলা হয় তখন বাচ্চাদের হুল্লোড় খিলখিল শব্দে জায়গাটা মুখর হয়ে উঠে। দৌড়া দৌড়ি তো আছেই।

গ্রামাঞ্চলে শহরের বাতাস লাগাতে সেখান থেকেও এখন এমন মজার খেলাটি যাই যাই করছে। এখন খুব কমই এই খেলার দেখা মেলে।

কানামাছি খেলাটি ‘ব্লাইণ্ড বি’ নামে ইউরোপেও প্রচলিত। দাসপ্রথায় অপরাধীর অন্যতম শাস্তি ছিল চক্ষু তুলে অঙ্গহানি করা; পরে তাকে শারীরিকভাবে উত্যক্ত করা। বিশেষজ্ঞদের ধারণামতে, কানামাছি খেলার উদ্ভবে এর ছায়াপাত থাকতে পারে।

শুধু এক টুকরো কাপড় আর কিছুটা জায়গা হলেই চলে লোকজ খেলা ‘কানামাছি’ খেলতে; কোনো সরঞ্জাম লাগে না।

এমনকি মাঠ, ছাদ বা ঘরের মধ্যেও খেলতে কোনো সমস্যা হয় না।  ‘কানা’ যে হবে তাকে একটু হাঁটাহাঁটি করার যায়গা করে দিতে পারলেই হয়। কানামাছির ‘কানা’ মানে কিন্তু আসল কানা নয়। দিব্যি চোখে দেখতে পাওয়া একজন মানুষ।

তবে, কানামাছি খেলায় অন্তত পক্ষে তিনজন খেলোয়াড় লাগে। একজন ‘কানা’ আর দুইজন সাধারণ খেলোয়াড়। তবে ১০-১২ জন বা তার বেশি খেলোয়াড় থাকলেও কোন সমস্যা হয় না।

এই মজার খেলার শুরুতেই টস করে একজনকে বেছে নিয়ে কাপড় দিয়ে চোখ বাঁধা হয়। চোখবাঁধা ব্যক্তিকেই বলা হয় কানামাছি।

কানামাছির ‘কানা’ যেন দেখতে না পায় তাই তার চোখ একটা রুমাল বা কাপড়ের টুকরা দিয়ে বাধা হয়। বন্ধন এমন হয় যাতে সে চোখেও দেখে না আবার চোখে ব্যথাও না পায়। মানে হলো খুব শক্তও না আবার হালকাও না।

চোখ বাধার পরে একজন ‘কানা’র চোখের সামনে আঙ্গুল দিয়ে জিজ্ঞেস করে কতগুলো আঙ্গুল আছে। এভাবে বুঝতে হয় সে দেখতে পাচ্ছে নাকি অথবা কতটা দেখতে পাচ্ছে। ধরো তখন যদি কেউ দেখেও না দেখার ভাব করে সেটাও বুঝে ফেলা যায়।

চোখ বেঁধে কানা বানিয়ে ফেলার পরে শুরু হয় আসলে খেলা। তখন কানাকে এলোমেলো ঘুরিয়ে দিয়ে বাকিরা চারিদিকে ছড়িয়ে পরে।

কানার কাজ হলো অন্যদের খুঁজে বের করে স্পর্শ করা। এটা শুনতে যত সমস্যা মনে হচ্ছে আসলে এত সমস্যা হয় না।

কারণ অন্য খেলোয়াড়রা কানার কাছ থেকে বাচতে এদিক ওদিক দৌড়ায় সেই আওয়াজে কানা ঠিকই টের পায় কে কোথায় আছে।

আবার মজা করতে অন্য খেলোয়াড়রা একটু দূরে গিয়ে কানাকে ‘কানামাছি ভোঁ ভোঁ, যাকে খুশি তাকে ছোঁ’ ছড়া কেটে ডাকও দেয়। কানা সেদিক দৌড় দেয়।

তখন চোখবাঁধা ব্যক্তিটিও ছড়া কাটতে থাকে ‘আন্ধা গোন্ধা ভাই,আমার কোনো দোষ নাই’। দৌড়াদৌড়ির মধ্যে কানা যদি কাউকে ছুঁয়ে দেয় তবে কানার কানা হওয়ার পালা শেষ।

এভাবে একের পর এক কানামাছির পরিবর্তন হয় কিন্তু সুর ও ছন্দ অপরিবর্তনীয়ই থাকে। যাকে ছোঁয়া হয়েছে সে নতুন ‘কানা’ এখন তার চোখ বাধা হবে আর যতক্ষণ সে অন্য কাউকে না ছুঁতে পারবে একই পদ্ধতিতে খেলা চলতে থাকবে।

যতক্ষণ খেলোয়াড়রা ক্লান্ত হয়ে খেলায় ক্ষান্ত না দিচ্ছে।

Print Friendly and PDF