চট্টগ্রাম, রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ , ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সিরিয়াফেরত প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ জঙ্গি চট্টগ্রামে আটক

প্রকাশ: ১২ জুন, ২০২১ ৩:১২ : অপরাহ্ণ

শনিবার (১২ জুন) ভোরে চট্টগ্রাম নগরীর খুলশী এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।শাখাওয়াত সিরিয়ায় ‘হায়াত তাহরীর আরশাম’ নামে একটি সংগঠনের হয়ে ৬ মাস সশস্ত্র প্রশিক্ষণের পর ইদলিব যুদ্ধে অংশ নেয়।

বাংলাদেশের যেকোনো স্পর্শকাতর বিষয় মুহূর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আনসার আল ইসলামের নানা পেজে আপলোড করতেন শাখাওয়াত আলী।

বেশকিছু দিন ধরেই তার তথ্য সংগ্রহ করছিল সিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিট।

শনিবার ভোরে নগরীর খুলশীর আহলে হাদীস মসজিদ এলাকা থেকে আটক করা হয় শাখাওয়াত আলীকে।

কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কর্মকর্তারা জানান, ২০১২ সালে ভায়রা মামুন এবং আরিফের সঙ্গে আনসার আল ইসলামে যোগ দেয় সে। ২০১৭ তুরস্ক সীমান্ত দিয়ে সিরিয়ায় ঢুকে শাখাওয়াত আলী।

এইচটিএস নামে একটু গ্রুপের সশস্ত্র প্রশিক্ষণ শেষে যুদ্ধে অংশ নেয় বলেও জানায় কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের কর্মকর্তারা।

পরবর্তীতে শাখাওয়াত আলী তুরস্ক সীমান্ত দিয়ে ইন্দোনেশিয়া যায়। সেখান থেকে প্রথমে শ্রীলঙ্কা, পরবর্তীতে চলতি বছরের ২২ মার্চ বাংলাদেশে ঢুকে আবারও জঙ্গি তৎপরতায় জড়িয়ে পড়েন তিনি। শাখাওয়াত আলীর পরবর্তী মিশন নিয়ে অনুসন্ধানে নামে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট।

সিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের উপ কমিশনার হাসান মো. শওকত আলী বলেন, আনসার আল ইসলামে তো সে আইটি বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করতো। বিভিন্ন ধরনের সংবাদ আপলোড করা, প্রযুক্তিগত বিষয়গুলোতে সহায়তা করা এইগুলো ছিল তার কাজ।সিরিয়ার ইদলিব শহরে সে প্রবেশ করে। ওইখানে সে গ্রুপের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয় বলে জানান  হাসান মো. শওকত আলী।

আটক শাখাওয়াত আলীর বিরুদ্ধে নগরীর খুলশী থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা হয়েছে।

Print Friendly and PDF