চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১ , ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রমজান মাসের যেসব ফজিলত বলেছেন বিশ্বনবি

প্রকাশ: ১১ এপ্রিল, ২০২১ ১২:০৯ : অপরাহ্ণ

বরকতময় মাস রমজান। এ মাসের রোজা পালনের মাধ্যমে মুমিন বান্দার জন্য যেসব অতুলনীয় প্রাপ্তি রয়েছে তা সুস্পষ্ট ভাষায় তুলে ধরেছিলেন বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। তিনি শাবান মাসের শেষ দিন সাহাবায়ে কেরামের উদ্দেশ্যে রমজানের প্রাপ্তিগুলো এভাবে বর্ণনা করেছেন-

হজরত সালমান আল ফারসি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন শাবান মাসের শেষ দিন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দিলেন। তিনি বললেন- ‘হে লোক সকল! একটি মহিমান্বিত মাস তোমাদের সবাইকে ছায়া হয়ে ঘিরে ধরেছে। (মাসটির অতুলনীয় প্রাপ্তিগুলো)-
– এ মাস একটি বারাকাতময় মাস।
– এটি এমন এক মাস, যার মধ্যে একটি রাত রয়েছে, যা হাজার মাসের চেয়ে উত্তম।
– আল্লাহ এ মাসের সিয়াম রোজা ফরজ করেছেন আর নফল করে দিয়েছেন এ মাসে রাতের (নামাজ) কিয়ামকে।

– আর যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করেন, সে যেন অন্য মাসের সত্তরটি ফরজ সম্পাদন করল।
– এ মাস সবরের (ধৈর্যের) মাস; সবরের সাওয়াব জান্নাত।
– এ মাস (সব কাজে) সহমর্মিতার মাস।

– এ এমন এক মাস যাতে মুমিনের রিজিক বৃদ্ধি করা হয়।
– যে ব্যক্তি এ মাসে কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে, এ ইফতার তার গোনাহ মাফের কারণ হবে।
– জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তির উপায় হবে। তার সাওয়াব হবে রোজাদারের অনুরূপ। অথচ রোজাদারের সাওয়াব একটুও কমানো হবে না।

আমরা বললাম, হে আল্লাহর রসুল! আমাদের সবাই তো রোজাদারের জন্য ইফতারের আয়োজন করতে সমর্থ নয়। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন-
‘এ সাওয়াব আল্লাহ তাআলা ওই ইফতার পরিবেশনকারীকেও দান করেন, যে একজন রোজাদারকে এক চুমুক দুধ, একটি খেজুর অথবা এক চুমুক পানি দিয়ে ইফতার করায়।

আর যে ব্যক্তি একজন রোজাদারকে পেট ভরে খাইয়ে পরিতৃপ্ত করল, আল্লাহ তাআলা তাকে আমার হাউজে কাওসার থেকে এভাবে পানি খাইয়ে পরিতৃপ্ত করবেন। যার পর সে জান্নাতে (প্রবেশ করার আড়ে) আর পিপাপিত হবে না। এমনকি সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে রমজানের রহমত বরকত মাগফেরাত ও নাজাতের তাওফিক দান করুন। হাদিসে বর্ণিত আমলগুলো যথাযথভাবে পালন করার তাওফিক দান করুন। বিশ্বনবি ঘোষিত অতুলনীয় নেয়ামতগুলো পাওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Print Friendly and PDF