চট্টগ্রাম, বৃহস্পতিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২০ , ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাতকানিয়া বাসীরা পেল আমার এ্যাম্বুলেন্স

প্রকাশ: ২৩ অক্টোবর, ২০২০ ৮:৪৮ : অপরাহ্ণ

মোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় মানব সেবার নতুন দিগন্তের উন্মোচন হয়েছে। প্রশংসনীয় এ জনহিতকর কাজের নাম দেয়া হয়েছে আমার এ্যাম্বুলেন্স।

সাতকানিয়ার অঁজপাড়া গাঁয়ের দুস্থ রুগীদের চিকিৎসা সেবা সহজলভ্য করতে এ উদ্যোগ নিয়েছেন উপজেলার পুরানগড় ইউনিয়নের বাসিন্দা ডা. মোরশেদ আলী।

(২৩ অক্টোবর) শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টার সময় উপজেলার কোরানীহাট আশশেফা হাসপাতাল চত্ত্বরে এলাকার সর্বস্তরের জনসাধারনের স্বতষ্ফুর্ত উপস্থিতিতে আমার এ্যাম্বুলেন্স নামের রোগীবাহী গাড়িটি সর্বসাধারনের জন্য উন্মোক্ত করেন ডা. মোরশেদ আলী।

দেশে কোভিড-১৯ এর আক্রমন ও সংক্রমনের ব্যপকতা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে যখন করোনা আক্রান্তরা অক্সিজেন সংকটে পড়েছিলেন ঠিক এমন সময়ে জনসেবার মহান ব্রত নিয়ে দু’হাত উজাড় করে অক্সিজেন নিয়ে এগিয়ে আসেন আমরা ছমদর পাড়াবাসী নামের একটি সামাজিক সংগঠন।

আজ শুক্রবার অঁজপাড়া গায়ের অসুস্থ রোগীদের পরিবহন সংকটের কারনে ন্যায্য স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হওয়ার বিষয়টি মাথায় রেখে রোগী পরিবহন গাড়ী আমার এ্যাম্বুলেন্স নিয়ে মানব সেবায় এগিয়ে আসেন ডা. মোরশেদ আলী।

এর আগেও তিনি করোনাকালীন সময়ে মফস্বল এলাকার কোভিড-১৯ আক্রান্তদের অক্সিজেন সংকট নিরসনে সাতকানিয়া, কক্সবাজার জেলার কুতুবদিয়া, বান্দরবান পার্বত্য জেলার নাইক্ষংছড়ি ও খাগড়াছড়ি জেলার রামগড়সহ ৪টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাই-ফ্লু নজেল ক্যানোলা স্থাপন করেছেন।

ডা. মোরশেদ আলী সাতকানিয়া উপজেলার পুরানগড় ইউনিয়নের জালাল আহমদ সওদাগরের ছেলে। ২০০৫ সালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে তিনি ডাক্তারী পাশ করে ২৮-তম বিসিএস উত্তীর্ণ হয়ে সরকারী চিকিৎসক হিসেবে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে চিকিৎসা সেবা দেন। ২০১৬ সালে ডা. মোরশেদ আলী এফসিপিএস সার্জারী ডিগ্রী লাভ করেন।

বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে সার্জারী বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করছেন। আমার এ্যাম্বলেন্স উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ইঞ্জিনিয়ার ছগির আহমদ, নাজিম উদ্দিন, উপজেলা চাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি রকিম উদ্দিন রাকিব ও সামশু মেম্বার প্রমুখ। এছাড়া এলাকার জনপ্রতিনিধি, চিকিৎসক, সাংবাদিক, শিক্ষক ও এলাকার মান্যগন্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

যোগাযোগ করা হলে ডা. মোরশেদ আলী বলেন, গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্য সেবা বঞ্চিদের চিকিৎসা সেবা প্রাপ্তি সহলভ্য করতে এ উদ্যোগ গ্রহন করেছি। তাছাড়া করোনা ভাইরাস এর প্রকোপ বৃদ্ধি পেলে বিভিন্ন উপজেলায় কোভিড রোগীদের অক্সিজেন প্রাপ্তি সহজ করতে ৪টি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাই-ফ্লু নজেল ক্যানোলা স্থাপন করে দিয়েছি।

Print Friendly and PDF

———