চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০ , ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশী হাইকমিশনারের রামগড়-সাব্রুম মৈত্রী সেতু ১ নির্মাণকাজ পরিদর্শন

প্রকাশ: ১৪ অক্টোবর, ২০২০ ১১:২৭ : অপরাহ্ণ

রামগড় প্রতিনিধি

খাগড়াছড়ির রামগড় ও ভারতের সাব্রুম স্থল বন্দর ও মৈত্রী সেতু ১ এর নির্মাণ কাজ সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার এইচ ই মুহাম্মদ ইমরান ।

বুধবার ( ১৪ অক্টোবর) বিকেল ৫টার সময় হাইকমিশনার বন্দর এলাকায় আগমন করলে তাকে অভ্যার্থনা জানান রামগড় ৪৩ বিজিবি জোন কমান্ডার লেঃ কর্ণেল তারিকুল হাকিম ও নবাগত জোন কমান্ডার লেঃকর্ণেল মোহাম্মদ আনোয়ারুল মাযহার। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, আগরতলা হাইকমিশন অফিসের এডমিন অফিসার মোঃ আশিকুর রহমানসহ দুই দেশের সেতু সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সেতু পরিদর্শনে হাইকমিশনার বলেন, ফেনী নদীর উপর নির্মাণাধীন এই ব্রীজ বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ সংযোগ তৈরী করবে। যার ফলে ব্যবসা, সাংস্কৃতি, উচ্চ শিক্ষা, পর্যটনসহ দুদেশের সু-সম্পর্ক আরো বহুগুনে বৃদ্ধি করবে।

উল্লেখ্য, গত ২০১৫ সালের ৬ জুন ঢাকা সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এক আনুষ্ঠানিকতায় রামগড় স্থলবন্দর চালুর লক্ষ্যে রামগড় দারোগা পাড়া মহামনি এলাকায় ফেনী নদীর উপর বাংলাদেশ- ভারত মৈত্রী সেতু ১ এর ভিত্তি প্রস্তর প্রতিস্থাপন আনুষ্ঠানিক ভাবে শুভ উদ্বোধন করেন।

সেতুটি নির্মাণে গত বছরের ১২ জানুয়ারী দেশটির ন্যাশনাল হাইওয়েস এন্ড ইনফ্রাষ্টাকচার ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন লিমিটেড (এনএইচআইডিসিএল) সংস্থাটি ১২৮ কোটি ৬৯ লাখ ভারতীয় রুপি ব্যয়ে ২ বছর ৫ মাসের মধ্যে ৪১২ মিটার দৈর্ঘ্য ও ১৪ দশমিক ৮০ মিটার প্রস্তের মূল সেতুটির দৈঘ্য ১শ ৫০ মিটার মুলে কাজ শুরু করে।

আর্ন্তজাতিক মানের সেতুটি যুক্ত হবে রামগড় বারইয়ার হাট-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সাথে অপরদিকে ভারত অংশে নবীনপাড়া ঠাকুরপল্লী হয়ে সাব্রুম আগরতলা জাতীয় সড়কসহ রেলপদ যুক্ত হবে ভারতীয় অংশে ইতিমধ্যে রেল পথ সম্পন্ন করা হয়েছে। সব কিছু ঠিক থাকলে চলতি বছরের ডিসেম্বরে সেতু র্নিমাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

 

Print Friendly and PDF

———