চট্টগ্রাম, রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০ , ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফের বিক্ষোভ হাটহাজারী মাদ্রাসায়, ভাঙচুর

প্রকাশ: ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ৪:২৩ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মইনুল ইসলামে (হাটহাজারি মাদ্রাসা) বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ করছে ছাত্ররা। এসময় আন্দোলনকারীরা হেফাজত ইসলামের আমীর আল্লামা আহমদ শফী, সহযোগী পরিচালক আল্লামা শেখ আহমদ, আল্লামা ওমর ফারুক ও মাদ্রাসার শিক্ষা ভবন ভাঙচুর করেছে।

এর আগে গতকাল রাতে ছাত্রদের বিক্ষোভের মুখে মাদ্রাসার শুরা কমিটি (সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারক ফোরাম) বুধবার এক জরুরি সভা ডেকে আনাস মাদানিকে মাদ্রাসার পদ থেকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত নেয়। উল্লেখ্য, হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শফির বড় ছেলে হলেন আনাস মাদানি।

হাটহাজারি মাদ্রাসার সহকারি পরিচালকের পাশাপাশি মৌলবাদী সংগঠনটির প্রচার সম্পাদকেরও দায়িত্ব পালন করছেন আনাস।

আন্দোলনরত ছাত্রদের একটি সূত্রে জানা যায়, গতকাল রাতে ছাত্রদদের দাবী দাওয়া মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হলেও রাতের বেলা গোপন বৈঠক করে মাদ্রাসা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বিষয়টি জানাজানি হয়ে গেলে আজ সকালে আবারও বিক্ষোভ শুরু করে ছাত্ররা। পরে মাদ্রাসার সহযোগী পরিচালক আল্লামা শেখ আহমদ এসে ছাত্রদের সকল দাবী মেনে নেওয়া হয়েছে ঘোষনা দিলে বিক্ষোভ বন্ধ হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে গনমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন হেফাজতে ইসলামের একজন নেতা। ওই নেতা বলেন, একরকম বাধ্য হয়েই ছেলের অব্যাহতিপত্রে স্বাক্ষর করেছেন শফি।

এদিকে, বুধবার হাটহাজারি মাদ্রাসার ভেতরে বিক্ষোভরত ছাত্ররা মারধর করেছে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাইনুদ্দিন রুহানিকে। আহতাবস্থায় মাইনুদ্দিন এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

অন্যদিকে, শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা হাটহাজারি মাদ্রাসার মূল ফটক তালাবদ্ধ করে বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছে।

অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়াতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এমন অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে ও বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে- মাদ্রাসার চারদিকে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা অবস্থান করছেন। যৌথ মহড়া দিচ্ছে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। মাদ্রাসার শাহী গেট শনিবার শুরার বৈঠক পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

বড় মসজিদের গেটে কঠোর নিরাপত্তা আরোপ করা হয়েছে। ছাত্ররা জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়ার সুযোগ পাবে, তবে ভর্তি রশিদ ব্যতীত বাইরে যাওয়া যাবে না। শনিবার পর্যন্ত কোনো বহিরাগত মাদ্রাসায় ঢুকতে পারবে না। সেইসঙ্গে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার থেকে মাদ্রাসার একাডেমিক সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

প্রসঙ্গত, হাটহাজারিতে প্রায় ৭ হাজার ছাত্র পড়াশোনা করে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান আল্লামা শফি। একইসঙ্গে তিন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান।

Print Friendly and PDF

———