চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ , ৩রা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনায় বিশ্বে মৃত্যু পৌনে ৯ লাখ ছাড়াল, আক্রান্ত ২ কোটি ৬৭ লাখ

প্রকাশ: ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ৯:১৬ : পূর্বাহ্ণ

প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনার প্রকোপ থামছেই না। সারা বিশ্বে এখনো তাণ্ডব চালাচ্ছে অদৃশ্য ভাইরাসটি। ইতোমধ্যে অচেনা ভাইরাসটি কেড়ে নিয়েছে আট লাখ ৭৮ হাজারের বেশি প্রাণ। আক্রান্ত দুই কোটি ৬৭ লাখ।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৫ হাজার ৬৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে অদৃশ্য ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে। একই সময়ে নতুন করে আরও ২ লাখ ৯২ হাজার ৫০৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ১২ হাজারের বেশি মানুষ।

করোনা নিয়ে আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, শনিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৬৭ লাখ ৮৪ হাজার ৮৩২ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮ লাখ ৭৮ হাজার ৮০৬ জন। সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন এক কোটি ৮৮ লাখ ৯৫ হাজার ৩৯১ জন।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু বেশি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটির সবকটি অঙ্গরাজ্যেই হানা দিয়েছে করোনা। যুক্তরাষ্ট্রের পরেই সংক্রমণে এগিয়ে রয়েছে লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল, ভারত, রাশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, পেরু, মেক্সিকো, কলম্বিয়া, চিলি এবং স্পেন।

আক্রান্ত ও মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের ধারে-কাছে নেই কোনো দেশ। সেখানে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬৩ লাখ ৮৯ হাজার ৫৭ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১ লাখ ৯২ হাজার ১১১ জন।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৪০ লাখ ৯১ হাজার ৮০১ জন। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ২৫ হাজার ৫৮৪ জন।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ লাখ ২০ হাজার ২৩৯ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৬৯ হাজার ৬৩৫ জন।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০ লাখ ১৫ হাজার ১০৫ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১৭ হাজার ৬৪৯ জন।

সংক্রমণে ৫ম অবস্থানে থাকা পেরুতে আক্রান্ত ও মৃত্যু বাড়ছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লাখ ৭০ হাজার ১৪৫ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৯ হাজার ৪০৫ জনের।

প্রাণঘাতী ভাইরাসটির সংক্রমণ বাড়ছে বাংলাদেশেও। ১৪ নম্বর অবস্থানে থাকা বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ২১ হাজার ৬১৫ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৪১২ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন দুই লাখ ২৯ হাজার ১৯১ জন।

Print Friendly and PDF

———