চট্টগ্রাম, সোমবার, ৩ আগস্ট ২০২০ , ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দুঃশ্চিন্তায় ইজারাদার

লোহাগাড়ায় কোরবানির হাটে গরু আছে, নেই কাঙ্ক্ষিত ক্রেতা

প্রকাশ: ২৬ জুলাই, ২০২০ ৭:৩৩ : অপরাহ্ণ

আলাউদ্দিন, লোহাগাড়া প্রতিনিধি

মহামারী করোনায় থমকে দাঁড়িয়েছে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড। দীর্ঘ সময় আয়-রোজগার বঞ্চিত মানুষজনের মাঝে এখন ঈদ-আনন্দের আমেজ নেই বললেই চলে।

লোহাগাড়া উপজেলা অন্যতম বৃহৎ গরুর হাট উপজেলার পদুয়া বাজার। রবি ও বুধবার এখানে হাট বসে। বিভিন্ন প্রান্ত থেকে খামারি ও ব্যবসায়ীরা কোরবানির পশু নিয়ে এই হাটে এলেও ক্রেতার দেখা মিলছে না।

আজ ২৬ জুলাই ( রবিবার) বিকালে সরেজমিন হাটে দেখা যায়, মাঝারি ও বড় মিলিয়ে হাজার হাজার গরু উঠেছে।

উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ব্যবসায়ীরা গরু আনছেন। সেই তুলনায় ক্রেতা নেই। তাই গরুর দড়ি ধরে বিক্রির জন্য দাড়িয়ে আছেন ব্যাপারীরা। করোনা পরিস্থিতির কারণে দামও পড়তি।

কথা হয় গরু বিক্রি করতে আসা আহমদ কবিরের সাথে তিনি বলেন, দুটি গরু বিক্রি করতে হাটে তুলেছিলাম। কিন্তু এখনো পযর্ন্ত কেউ দাম জিজ্ঞেস করেনি। হাটে ন্যায্যা মূল্যে বিক্রি করতে না পরলে গরু দুটো বাড়িতে নিয়ে যাব।

হাটে আসা খামারি নুরুল আলম সিটিজি টাইমসকে জানান,ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেও ক্রেতা মিলছে না। করোনার কারণে এ বছর বিক্রি নিয়ে সংশয়ে আছি । মাত্র দু’জন ক্রেতা এলেও তারা তেমন কোনও দাম বলেননি।

দুঃশ্চিন্তায় রয়েছেন হাটের ইজারাদার

হাটের ইজারাদার মো: রাশেদুল ইসলাম চৌধুরী সিটিজি টাইমসকে জানান, এবার হাটের ইজারা মূল্য উঠবে কি না তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছি।পদুয়া তেওয়ারী হাট ভ্যটসহ ১ কোটি ২ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা দিয়ে ইজারা নিয়েছি।

করোনার শুরু থেকে সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী হাট-বাজার বসা বন্ধ করে দিয়েছিলাম।

লকডাউন তুলে দিলে হাট-বাজার বসলেও পশুর হাটে ক্রেতা-বিক্রেতার সংখ্যা কমে গেছে। হাটবাজার জমে উঠলেও ক্রেতা তেমন নেই।

ফলে তাকে লোকসান গুণতে হবে।তিনি আরো জানান, তেওয়ারীহাট বাজারে ইজারা নেওয়ার সময় যে পে-অর্ডারের টাকাগুলো জমা দিয়েছি সেগুলো তিনি পাবেন কিনা সন্দিহান। তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

পশুর হাটে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

কোরবানির পশুর হাট। কোনো শারীরিক দূরত্ব না মেনে সেখানে ছুটে বেড়াচ্ছেন ক্রেতা বিক্রেতারা। অনেকেই স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা জেনেও পরেন না মাস্ক।

হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্দেশনা থকলেও তা মানছেন না কেউ।

এমন পরিস্থিতিতে করেনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়তে পারে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সচেতন নাগরিকরা।

এদিকে, একই দিন দুপুরে হাট পরিদর্শনে আসেন সাতকানিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান মোল্যা।

তিনি সিটিজি টাইমসকে বলেন , হাটে আসা ক্রেতা- বিক্রেতাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশু ক্রয় বিক্রয় করতে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। সেইসাথে গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করতে ইজারাদার কে বলা হয়েছে।

আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে পুলিশের পাশাপাশি সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। পুলিশের পক্ষ হতে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

Print Friendly and PDF

———