চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০ , ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে ই-পাসপোর্ট বিতরণ শুরু কাল

প্রকাশ: ১১ জুলাই, ২০২০ ১০:৪২ : পূর্বাহ্ণ

একজন মুক্তিযোদ্ধার হাতে পাসপোর্ট তুলে দেয়ার মাধ্যমে বহুল আকাঙ্ক্ষিত ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট (ই-পাসপোর্ট) পেতে যাচ্ছেন চট্টগ্রামের বাসিন্দারা। এই বছরের জানুয়ারিতে ঢাকায় ই-পাসপোর্ট দেয়া শুরু হলেও চট্টগ্রামে শুরু হচ্ছে কাল থেকে।

বিশ্বের ১১৯ নম্বর দেশ হিসেবে বাংলাদেশ ই-পাসপোর্ট চালু করেছে। পাঁচ বছর এবং দশ বছর মেয়াদের দুই ধরনের ই-পাসপোর্ট দেয়া হচ্ছে। তবে কাল চট্টগ্রামে পাঁচটি ১০ বছর মেয়াদী ই-পাসপোর্ট সংশ্লিষ্টদের হাতে তুলে দেয়া হবে।

বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা  জানান, আগে দেশের বিভিন্ন পাসপোর্ট অফিসে প্রতিদিন গড়ে পঁচিশ হাজার মানুষ নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করলেও; বর্তমানে করোনাভাইরাসের কারণে চট্টগ্রামসহ সারা দেশে বায়োমেট্রিক কার্যক্রম অনেকটা বন্ধ রয়েছে। সীমিতভাবে কিছু কর্মকাণ্ড চলছে।

একই মেশিনে প্রত্যেক আবেদনকারীর আঙুলের ছাপ (ফ্রিঙ্গার প্রিন্ট), সিগনেচার এবং চোখের মণির ছবি (আইরিশ) তোলা করোনা সংক্রমণের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় শীর্ষ পর্যায়ের সিদ্ধান্তে বায়োমেট্রিক কার্যক্রম সীমিত রাখা হয়েছে।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিসের পরিচালক মো. আবু সাইদবলেন, আগামীকাল ই-পাসপোর্ট প্রদান করা হবে।

কাল সকালে নগরীর ডবলমুরিং থানাধীন পাঠানটুলীর নজির ভান্ডার লেইনের মুক্তিযাদ্ধা জাহেদ আহমেদের হাতে ই-পাসপোর্ট তুলে দেয়া হবে। একই সাথে শীর্ষ একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে ৩৪ ইঞ্জিনিয়ারিং ব্রিগেড কমান্ডের ডিজি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহমেদ তানভীর মাজহার সিদ্দিকীর এবং অপর তিনজন নাগরিকের হাতে ই-পাসপোর্ট তুলে দেয়া হবে।

চট্টগ্রামে আজ দেয়া প্রতিটি পাসপোর্টের মেয়াদ দশ বছর। দেশে এই প্রথম দশ বছর মেয়াদের পাসপোর্ট দেয়া হচ্ছে। অবশ্য ৫ বছর মেয়াদের ই-পাসপোর্টও রয়েছে। পৃষ্ঠাসংখ্যাও হবে দুই ধরনের। এক ধরনের বইতে ৪৮ পৃষ্ঠা, অপর ধরনের বইয়ে থাকবে ৬৪ পৃষ্ঠা।

পাসপোর্টের ফি-ও নতুন করে নির্ধারণ করা হয়েছে। ৪৮ পৃষ্ঠার পাসপোর্টের জন্য পাঁচ বছর মেয়াদি সাধারণ ফি ৪ হাজার ২৫ টাকা, ৬৪ পৃষ্ঠার ফি ৫ হাজার ৭৫০ টাকা। অপরদিকে ১০ বছর মেয়াদের ৪৮ পৃষ্ঠার পাসপোর্টের জন্য ফি ৬ হাজার ৩২৫ টাকা, ৬৪ পৃষ্ঠার জন্য ফি ৮ হাজার ৫০ টাকা। এই ফি’র সাথে বাড়তি ফি যোগ করে জরুরি এবং অতি জরুরি পাসপোর্ট নেয়ার সুযোগ থাকবে। তবে করোনাকালে এসব সুবিধা কার্যকর হবে না।

সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বলেন, ই-পাসপোর্ট চালু হলেও এমআরপি প্রদান এখন বন্ধ হচ্ছে না। দুই ধরনের পাসপোর্টই চালু থাকবে। বিদ্যমান ফি দিয়ে এমআরপি পাওয়া যাবে। আবেদনকারীর আবেদনের ভিত্তিতে ই-পাসপোর্ট এবং এমআরপি প্রদানের বিষয়টি নির্ধারিত হবে।

Print Friendly and PDF

———