চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০ , ১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জামায়াত সংশ্লিষ্টতা, আনাস মাদানীর অভিযোগ নির্জলা মিথ্যাচার: বাবুনগরী

প্রকাশ: ২ জুলাই, ২০২০ ১২:২১ : পূর্বাহ্ণ

হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ছেলে মাওলানা আনাস মাদানীর একটি ফোনালাপের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সংগঠনটির মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

বুধবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘মাওলানা আনাস মাদানী কর্তৃক একটি ফোনালাপে আমার বিরুদ্ধে “জামায়াত সংশ্লিষ্টতা ও ২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরে আমি মানুষকে নিয়ে মার খাইয়েছি” বলে যে কথা বলেছে, তা সম্পূর্ণ নির্জলা মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছুই নয়’।

জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, জামায়াতের সঙ্গে আমার বিন্দুমাত্র সম্পর্ক নেই। অতীত-বর্তমানে কোনো সময়ই জামায়াতের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ছিল না; বরং পুরো জীবন আমার লেখালেখিতে ও লাখ লাখ মানুষের সমাবেশে বয়ান-বক্তৃতার মধ্যে জামায়াতের ভ্রান্ত আকিদা সম্পর্কে আমি দেশবাসীকে সচেতন করে আসছি।

বাবুনগী তার বিবৃতিতে বলেন, জামায়াত সংশি­ষ্টতা নিয়ে আমার সম্পর্কে সে (আনাস মাদানী) যা বলেছে, সেটা তার পরিকল্পিত মিথ্যাচার। তার এহেন মিথ্যাচার আমাকে বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ করার ধারাবাহিক ষড়যন্ত্রেরই অংশ বলে আমি মনে করি।

তিনি বলেন, কিছু দিন থেকে আমি লক্ষ্য করছি যে, তারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে একটি কুচক্রীমহলের ইন্ধনে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা এবং সাজানো কথা রটিয়ে উস্কানিমূলকভাবে সরকার এবং প্রশাসনকে বিভ্রান্ত করে ঘোলাপানিতে মাছ শিকার করার চক্রান্ত করে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ‘মাওলানা আনাস মাদানী তার ফোনালাপে ২০১৩ সালে শাপলা চত্বরের মর্মান্তিক ঘটনার সম্পূর্ণ দায়ভার আমার ওপর চাপিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা করেছে। সে শাপলা চত্বরের মর্মান্তিক ঘটনা নিয়ে আমাকে জড়িয়ে এমন ডাহা মিথ্যে কথা বলতে পারবে, তা আমি আশা করিনি। অথচ জেলে গেলাম আমি। রক্ত দিলাম আমি। রিমান্ডে অমানুষিক নির্যাতন ভোগ করলাম আমি। সে রাতে হেফাজতের সমাবেশে কী হয়েছিল তা জাতি জানে, কিন্তু মামলার আসামি হয়েছিলাম আমি।’

বাবুনগরী তার বিবৃতিতে আরো বলেন, ‘২০১৩ সালে কারা জামায়াতসহ বিরোধী রাজনৈতিক দল থেকে সুবিধা ভোগ করেছে আর আজ সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে কওমিদের নীতি-আদর্শ বিসর্জন দিয়ে হেফাজতকে ধ্বংস করার চক্রান্ত করছে, তা জাতি ভালো করেই জানে’।

Print Friendly and PDF

———