চট্টগ্রাম, শনিবার, ৪ জুলাই ২০২০ , ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে কিট স্বল্পতা, করোনা পরীক্ষা কমে অর্ধেক

প্রকাশ: ২৮ জুন, ২০২০ ১০:০১ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের ১৪ উপজেলার ২ হাজার ১৭১ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষা আটকা পড়ে আছে। পাশা-পাশি পরীক্ষার কিটের স্বল্পতার কারণে চট্টগ্রামে শনিবার পরীক্ষার সংখ্যা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে।

চট্টগ্রামে যে ছয়টি ল্যাবে করোনাভাইরাস পরীক্ষা হয়, তার মধ্যে বেসরকারি দুটিতে শনিবার কোনো পরীক্ষাই হয়নি। আর সরকারি চার ল্যাবের মধ্যে দুটিতে পরীক্ষা হয়েছে আগের দিনের এক চতুর্থাংশে। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, কিট আনতে রোববার ঢাকায় লোক পাঠানো হয়েছে, এ জটিলতা শিগগিরই ‘কেটে যাবে’।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যমতে, চট্টগ্রামের ১৪ উপজেলা থেকে আজ রোববার পর্যন্ত ১০ হাজার ৭৬৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮ হাজার ৫৯৮ জনের ফলাফল পাওয়া গেছে।এ পর্যন্ত চট্টগ্রামের ১৪ উপজেলার ২ হাজার ৪৪৮ জনের বাসিন্দার দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

ফলাফল আটকে থাকা ২ হাজার ১৭১ জনের মধ্যে বাঁশখালীর ৮২ জন, সাতকানিয়ার ১৭৫ জন, লোহাগাড়ার ১৬৫ জন, চন্দনাইশের ২১৮ জন, আনোয়ারার ৫০ জন, পটিয়ার ১৫৫ জন, বোয়ালখালীর ১৮৭ জন রয়েছেন।

এছাড়া সন্দ্বীপের ১৬ জন, মিরসরাইয়ের ৯০ জন, সীতাকুণ্ডের ১৯৭ জন, রাউজানের ১৮৫ জন, রাঙ্গুনিয়ার ১৪৭ জন, হাটহাজারীর ২০৬ জন ও ফটিকছড়ির ২৯৮ জন নমুনা দিয়ে আজ পর্যন্ত ফলাফল পাননি।

চট্টগ্রাম জেলার সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি রোববার জানান, শনিবার চট্টগ্রামের চারটি ল্যাবে ৫৯০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৬৪ জনের করোনাভাইরাস ‘পজিটিভ’ আসে।

বিআইটিআইডি ল্যাবের প্রধান ডা. শাকিল আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, “আমাদের কাছে আজ অল্প কিছু কিট আছে, একশটির মত হবে। অন্যদিন তিনশ’র মত টেস্ট হলেও আজকে যা আছে তা দিয়েই পরীক্ষা হবে।

এ বিষয়ে গনমাধ্যমকে সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, “কিটের সংখ্যা কমে এসেছে। ঢাকায় লোক পৌঁছে গেছে। আজই কিট নিয়ে রওনা হবে। সেগুলো এসে গেলে সঙ্কট থাকবে না। তবে শুক্র-শনিবার নমুনা কম পাওয়া যায়, সেজন্যও পরীক্ষার সংখ্যা কমেছে।”

Print Friendly and PDF

———