চট্টগ্রাম, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০ , ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রামগড়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ; মোট আক্রান্ত ৫

প্রকাশ: ৯ জুন, ২০২০ ১:৩১ : অপরাহ্ণ

রামগড়(খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি

বৈশ্বিক মহামারী ‘করোনা ভাইরাস’ রোধে খাগড়াছড়ির রামগড়ে সেনাবাহীনি ও উপজেলা প্রশাসনের কঠোর সর্তকর্তা সত্ত্বেও সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি পরিপূর্ণভাবে না মানায় দিনদিন করোনা সংক্রমণের হার বাড়তে শুরু করেছে। ৯ জুন মঙ্গলবার পর্যন্ত রামগড় উপজেলায় মোট আক্রান্ত হয়েছে ৫ জন। আক্রান্তের সবাই পুরুষ । এরমধ্যে একজনকে সুস্থ ঘোষণা করেছে উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্স।

জানা গেছে, বৈশ্বিক মহামারী ও প্রাণঘাতি ‘করোনা ভাইরাস’ সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ও প্রতিরোধে মাঠপর্যায়ে সেনাবাহীনি ও উপজেলা প্রশাসন কঠোরভাবে নজরদারীর পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর গুরুত্বারোপ করে নিয়মিত টহল ও অভিযান অব্যাহত রাখলেও উপজেলার হাঁট-বাজার, লোকালয়, সমাগমে উপস্থিতিরা ‘করোনা’ প্রতিরোধে করণীয় মানছেনা বললেই চলে! যার কারণে গত তিন সপ্তাহ ধরে ‘করোনা’র প্রভাব দেখা দিয়েছে রামগড়ে।

প্রথমে ১৮মে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দেওয়ান নামে একজন টেকনোলজিস্টের শরীরে ‘করোনা’ সংক্রমণ পজেটিভ শনাক্ত হয় পরে দ্বিতীয় রির্পোটে এবং ৩য় রির্পোটে নেগেটিভ হলে ১জুন তাকে সুস্থ ঘোষণা করা হয়। এছাড়া গত ১ জুনের রির্পোটে যুব রেডক্রিসেন্ট রামগড় ইউনিটের যুব প্রধান আবছার হোসেনের রির্পোট পজেটিভ আসে তবে ৯জুন তার দ্বিতীয় রির্পোট ও পরিবারসহ সংপর্শ্বে থাকা সকলের রির্পোট নেগেটিভ আসে। এর আগে গতকাল ৮ জুন উপজেলা খাদ্য গুদামের উপ-পরিদর্শক নজরুল ইসলামের শরীরে করোনা রির্পোট পজিটিভ শনাক্ত হয়।

সর্বশেষ ৯ জুন মঙ্গলবার সকালে ২জনের পজিপিভ রির্পোট আসে তাদের ১জন রামগড়ের সোনাইপুল চেকপোষ্টের জাজিদ হাসান নামে এক পুলিশ সদস্য অপরজন মাষ্টারপাড়ার আবু ইউসুফ নামে এক ব্যবসায়ী। এদের সবাই বর্তমানে সুস্থ থাকলেও প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন এবং উপজেলা প্রশাসন তাদের বাড়িসহ প্রতিবেশিদের বাড়িঘর লকডাউন করে দিয়েছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জিন্নাত রেহান বলেন, সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর আরো গুরত্ব দিতে হবে। তিনি বলেন, একমাত্র স্বাস্থবিধি মেনে চলাই এরোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। অন্যথায় ‘করোনা’র ছোবল আরো ভয়াবহ হতে পারে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ম্যাজিস্ট্রেট সজিব কান্তি রুদ্র জানান, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর প্রতিনিয়ত প্রচার-প্রচারণার পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা অব্যাহত রয়েছে।

পৌর মেয়র মোহাম্মদ শাহজাহান কাজী রিপন জানান, স্বাস্থবিধি মেনে ঘরে থাকাই এখন করোনা সংক্রমণ রোধে অন্যতম প্রতিশেধক। সংক্রমন রোধে পৌর এলাকায় জীবাণুনাশক স্পে ছিটানোসহ বিতরণ স্পটে অটো জীবানুনাশক স্পে স্থাপন করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদিপ ত্রিপুরা বলেন, জনগণ নিরাপদ ও সুস্থ থাকতে প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য উপহার ও নদগ টাকা প্রধান করে যাচ্ছেন যাতে মানুষ ঘরে থাকে, নিরাপদ থাকে এবং স্বাস্থবিধি মেনে চলে।

Print Friendly and PDF

———