চট্টগ্রাম, শনিবার, ৪ জুলাই ২০২০ , ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামের সব বেসরকারি হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা, ফিরিয়ে দিলে লাইসেন্স বাতিল

প্রকাশ: ৩০ মে, ২০২০ ৯:১০ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম মহানগরীর সকল বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি এবং চিকিৎসা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। একেই সাথে কোনো রোগীকে চিকিৎসা না দিয়ে ফিরিয়ে দিলে সংশ্লিষ্ট বেসরকারি হাসপাতালের লাইসেন্স বাতিলসহ আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তবে, এই ক্ষেত্রে চিকিৎসার যাবতীয় ব্যয়ভার রোগী বা রোগীর স্বজনদেরই বহন করতে হবে। বেসরকারি হাসপাতালগুলো আলাদা করোনা ইউনিট করে সেখানে রোগী ভর্তি এবং চিকিৎসা প্রদান করবে।

শনিবার (৩০ মে) দুপুরে চট্টগ্রামের চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে বেসরকারি ক্লিনিক মালিকদের সঙ্গে জেলা প্রশাসনের এব সমন্বয় বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ জানান, চট্টগ্রামের সকল বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক মালিকরা তাদের হাসপাতালে করোনা রোগীদের ভর্তি ও চিকিৎসা দিতে সম্মত হয়েছে।

চট্টগ্রামের বেসরকারি হাসপাতাল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী জানান, বেসরকারি ক্লিনিক এবং হাসপাতালসমূহে আলাদা করোনা ইউনিট করে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হবে। সিট খালি থাকলেই সব হাসপাতাল রোগী ভর্তি করবে। তবে চিকিৎসার ব্যয়ভার রোগী বা রোগীর স্বজনরাই বহন করবেন।

এদিকে, বেসরকারি হাসপাতালে করোনার চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে পুলিশ, স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতিনিধি ও বিএমএর প্রতিনিধি নিয়ে একটি মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। যদি কোন হাসপাতাল রোগীকে ইচ্ছাকৃতভাবে ফেরত পাঠায় তাহলে সেই হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে সমন্বয় সভায়।

চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান, বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক মোস্তাফা খালেদ আহমেদ, চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা শেখ ফজলে রাব্বি, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার শংকর রঞ্জন সাহা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো কামাল হোসেন, বিএমএ চট্টগ্রাম সভাপতি ডা. মুজিবুল হক খান, সাধরণ সম্পাদক ডা. ফয়সল ইকবাল, ক্লিনিক মালিক সমিতির সেক্রেটারি ডা. লিয়াকত আলীসহ বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালের প্রতিনিধিরা।

Print Friendly and PDF

———