চট্টগ্রাম, সোমবার, ১ জুন ২০২০ , ১৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনা: ত্রাণ মেলেনি লোহাগাড়ার আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের

আলাউদ্দিন, লোহাগাড়া প্রতিনিধি প্রকাশ: ১০ এপ্রিল, ২০২০ ১০:১৫ : অপরাহ্ণ

লোহাগাড়া উপজেলার চরম্বা ইউনিয়নের মাইজবিলার আশ্রয়ণ প্রকল্পের ১৫০ পরিবার মানবেতর দিন কাটাচ্ছে। করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সংকটে কাজ-কর্ম বন্ধ থাকায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দারা বিপাকে পড়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে দেখা গেলেও মাইজবিলা আশ্রয়ণ প্রকল্পের কেউ এখনো কোনো খাদ্যসামগ্রী পাননি বলে অভিযোগ করেছেন উক্ত আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দারা।

আশ্রয়ণ প্রকল্পে বাসিন্দা মো: এনাম ফকির সিটিজি টাইমসকে বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পে বাসিন্দারা কেউ রিকশা-ভ্যান চালিয়ে আবার কেউ কেউ দিনমজুরির কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন।

তবে করোনার কারণে সামাজিক বিচ্ছিন্নতাকরণ শুরু হওয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে রুটি রোজগারের পথ। এতে বেকার হয়ে পড়েছেন এখানকার বাসিন্দারা।

অসুস্থ শিশু কন্যাকে নিয়ে দরজায় বসে থাকা নুরুজাহানের সাথে কথা হয়। তিনি সিটিজি টাইমসকে বলেন, স্বামী নেই। গত শীতে একটি কম্বল জুটেছিল। এরপর থেক কিছুই পাইনি। এমনকি করোনা সংক্রমণ নিয়ে তাদের কোনো ধারণা নেই। শুধু একমুঠো খাবার নিয়ে আশ্রয়ণের বাসিন্দাদের যত চিন্তা।

তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রকল্পটি চালু হওয়ার পর থেকে কাঠ আর টিনের তৈরি ঘরগুলো একবারও সংস্কার হয়নি।

ফলে ধীরে ধীরে বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে ঘরগুলো। বেশির ভাগ ব্যারাকের টিনের চাল মরিচা পড়ে ছিদ্র হয়ে গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চরম্বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার শফিকুর রহমার সিটিজি টাইমসকে বলেন, সরকারি ভাবে যা বরাদ্দ পেয়েছি তা ইউপি সদস্যদের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়েছে। আমার মনে হয় আশ্রয়ণ প্রকল্পের ২/৩ জন বাসিন্দা পেয়েছে।

তিনি সিটিজি টাইমসকে আরও বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের জন্য আলাদা তালিকা করা হচ্ছে। নতুন ত্রাণ এলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদের দেওয়া হবে।

Print Friendly and PDF

———