চট্টগ্রাম, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ , ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনায় দেশে আরও ৯ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩০৬ জন

প্রকাশ: ১৮ এপ্রিল, ২০২০ ২:৩৮ : অপরাহ্ণ

বিশ্বে মহামারি রূপ নেয়া করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৪ জনে। করোনা ভাইরাস নিয়ে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে শনিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে এ তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২১৪৪ জনে। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৮ জন। মোট সুস্থ ৬৬ জন।

দেশে গেল ৮ মার্চ প্রথম করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর বাড়তে থাকে সংক্রমণ। এই ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশ সরকারও সাধারণের চলাচল সীমিত করতে নানা পদক্ষেপ নেয়। এর অংশ হিসেবে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান। কয়েক দফায় বাড়িয়ে সেই ছুটি এখনও চলছে।

বর্তমানে দেশে ভাইরাসটির কমিউনিটি ট্রান্সমিশন হচ্ছে বলে আগেই জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এজন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে সবাইকে সামাজিক দূরত্ব মানার পাশাপাশি সব পরামর্শগুলো মেনে চলতে বলা হচ্ছে। তবে কিছু ক্ষেত্রে সেই নিয়ম ভাঙছেন সাধারণ মানুষ। আর এক কারণে সম্প্রতি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত রাস্তায় বেরনো নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

অনেকেই ভাঙছেন সেই নির্দেশও। তবে সাধারণকে এই নির্দেশনা মানাতে মাঠে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছেন তারা। কিছুক্ষেত্রে জরিমানাও করা হয়েছে।

গেল ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম এই ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর খুব দ্রুতই সেখানে এই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। এরপর তা ছড়ায় বিশ্বের অন্যান্য দেশে।

চীন এই ভাইরাসের সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলেও টালামালট অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রের। সেখানে এখন পর্যন্ত ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে ৭ লাখ ৯ হাজার ৭৩৫ জনের শরীরে। এবং মারা গেছেন ৩৭ হাজার ১৫৪ জন মানুষ।

সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যায় এর পরের সারিতে রয়েছে ইউরোপের দেশগুলো। বিশেষ করে স্পেন, ইতালি, ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যে ভাইরাসটি ব্যাপক তাণ্ডব চালাচ্ছে।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) প্রতিবেদনটি লেখা পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডোমিটার ওয়েবসাইটের সর্বশেষ তথ্যানুসারে, বিশ্বে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ২২ লাখ ৫০ হাজার ৬৮৯ জন। মারা গেছেন ১ লাখ ৫৪ হাজার ২৫৬ জন। অবস্থা আশঙ্কাজনক ৫৬ হাজার ৯৬৩ জনের। আর সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখ ৭২ হাজার ১০৩ জন।

Print Friendly and PDF

———