চট্টগ্রাম, বৃহস্পতিবার, ৪ জুন ২০২০ , ২১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফেনী নদীতে নো ম্যানস ল্যান্ডে বন্ধি ভারসাম্যহীন নারীর মুক্তি মেলেনী ৮ দিনেও

করিম শাহ, রামগড় (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি: প্রকাশ: ১০ এপ্রিল, ২০২০ ৫:৩৩ : অপরাহ্ণ

ফেনী নদীর মাঝখানে তথা নো ম্যানস ল্যান্ডে গত ৮দিন ধরে পড়ে থাকা মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারীকে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীই (বিএসএফ) ভারত থেকে ঠেলে পাঠিয়েছে। এ নিয়ে দুই দেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর মাঝে বৈঠক হলেও এখনও মেলেনি কোনো সমাধান। মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারীকে বারবার বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টা করছে বিএসএফ। গত ৮দিন ধরে ওই নারী ফেনী নদীর নো ম্যানস ল্যান্ডে অবস্থান করছেন।

রামগড় ৪৩ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন (বিজিবি) সূত্রে জানা যায়, ঘটনার সূত্রপাত গত ২ এপ্রিল, সকাল ১১টা পর খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় সীমান্তে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সাবরুম মহকুমাধীন এলাকা থেকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ ও সে দেশের কতিপয় জনসাধারণ এক ভারতীয় মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলাকে ফেনী নদী অতিক্রম করিয়ে বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টা করে। খবর পেয়ে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি বাঁধা দেয়।

দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কারণে গত ৮ দিন ধরে ওই মানসিক ভারসাম্যহীন নারী বাংলাদেশের রামগড়-ভারত -সাব্রুম সীমান্তের নোম্যানস ল্যান্ডে অবস্থান করছে। তবে ওই নারীকে নিয়মিত খাবার দিয়ে সহায়তা করছে সীমান্তবর্তী উপজেলা রামগড়ের কয়েকজন বাংলাদেশি যুবক।

সীমান্তবাসীরা বলছেন, ভারতের বিএসএফ ও ভারতীয় কিছু লোক ওই নারীকে পিটিয়ে বাংলাদেশে পাঠানোর চেষ্টা করেছে। নারীটি বারবার ভারতে ফিরতে চাইলেও বিএসএস বাঁধা দেয় এবং সে যাতে ভারতের দিকে যেতে না পারে সে জন্যে বিএসএফ রাত-দিন পাহারা দিচ্ছে।

রামগড় বাজার সংলগ্ন সীমান্তে বসবাসরত হারু দে বলেন, ‘বিএসএফ এবং ভারতীয় এলাকাবাসী মিলে পিটিয়ে ভারসাম্যহীন ওই নারীকে বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টা করে। খবর পেয়ে বিজিবি তাতে বাঁধা দিয়েছিল।’

রামগড় সীমান্তে বসবাসরত আরেক এলাকাবাসী আব্দুল মান্নান বলেন, ‘বিএসএফ ভারসাম্যহীন ওই নারীকে পিটিয়ে বাংলাদেশে পাঠানোর চেষ্টা করছে, কিন্তু নারীটি বারবার ভারতীয় অংশে যেতে যায়। আমাদের কিছু লোক তাকে খাদ্য দিয়ে সহায়তা করলেও বিএসএফর নির্মমতায় আর কিছুই করতে পারছি না।’

রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ কারবারী বলেন, ‘নো ম্যানস ল্যান্ডে অবস্থানরত মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারী তার বাড়ি একবার ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সাবরুম থানার দোলবাড়ি এলাকায়, আরেকবার হরিণা এলাকায় বলে জানিয়েছে। তার কথাবার্তা, পোশাক-পরিচ্ছদে ভারতীয় সংস্কৃতির সাথে মিল রয়েছে। তারপরও বিএসএফ বারবার তাকে বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’

৪৩ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন রামগড় জোনের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. তারিকুল হাকিম বলেন, ‘ওই মানসিক ভারসাম্যহীন নারীর বিষয়টি নিয়ে ভারত ও বাংলাদেশ সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ে একটি বৈঠক হয়েছে। কিন্তু নারীটি পূর্ণাঙ্গ কোনো নাম-ঠিকানা বলতে না পারায় তারা (ভারত) ফেরত নেয়নি।’ এই বিষয়ে বিজিবির পক্ষ হতে সার্বক্ষণিক বিএসএফের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

Print Friendly and PDF

———